ছন্দে ফিরতে ক্রিকেট গুরু নাজমুল আবেদীনের শরণাপন্ন হয়েছেন মুমিনুল

ছন্দে ফিরতে ক্রিকেট গুরু নাজমুল আবেদীনের শরণাপন্ন হয়েছেন মুমিনুল

খেলা

বাংলাদেশ ক্রিকেটে বর্তমানে সবচেয়ে আলোচিত নাম মুমিনুল হক। সময়টা একেবারেই ভালো যাচ্ছে না টেস্ট দলের অধিনায়কের। লম্বা সময় ধরে রানের দেখা পাচ্ছেন না। তার দলও পাচ্ছে না সাফল্যের খোঁজ। এজন্য ব্যাটসম্যান মুমিনুল যেমন দুঃসময় পার করছেন, তেনমি তাকে অধিনায়কত্ব থেকে সরানোর জোর আলোচনা চলছে। এই অবস্থা থেকে নিজেকে ফিরে পেতে লড়াইয়ে নেমেছেন মুমিনুল। শ্রীলঙ্কা সিরিজ শেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের আগে সবাই যখন ছুটিতে, তখন মিরপুরে একক অনুশীলনে তিনি।

আবার ছন্দে ফিরতে বিকেএসপির কোচ আর ক্রিকেট গুরু নাজমুল আবেদীন ফাহিমের শরণাপন্ন হয়েছেন মুমিনুল। আজ সোমবার মিরপুরের ইনডোরে প্রায় ৩ ঘণ্টা ব্যাটিং অনুশীলন করেছেন। এই অনুশীলনে ঘণ্টাখানেকের বেশি সময় দিয়েছেন ফাহিম ‘স্যার’। কাজ করেছেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের বেসিক নিয়ে।

মুমিনুলকে ব্যাটিং কৌশল দেখিয়ে ফেরার পথে উপস্থিত সংবাদমাধ্যমকে ফাহিম বলছিলেন, ‘মুমিনুল বেশ লম্বা সময় ধরেই একটা ব্যাড প্যাচের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এ সময় অনেকে ভালো করতে গিয়ে আরও খারাপ করে ফেলে। এগুলো করতে করতে মূল থেকেই সরে যায়। বেসিক নিয়েই একটু কাজ করেছি। আমার মনে হয় একসময় বেসিক ভালো ছিল, এখন সেটা নেই। সেটা নিয়ে কাজ করেছি। আগের চাইতে দেখতে ভালো লাগছে। আরও ২-১ দিন কাজ করলে আরও ভালো হবে।’

সঙ্গে যোগ করেন ফাহিম, ‘বেসিক থেকে বাইরে চলে গেলে এই পর্যায়ে ব্যাটিং করা খুব কঠিন। এটাই মূল কারণ। তাড়াতাড়ি কেটে গেলে ভালো করবে। দেখে মনে হচ্ছে বেশ কিছু ঠিক হয়েছে, ব্যাটে-বলে ভালো হচ্ছে। আমার মনে হয় সামনে অনেক ভালো করবে।’

সর্বশেষ ১০ ইনিংসে মাত্র ২ বার দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেন মুমিনুল, যেখানে সর্বোচ্চ ৩৭ রান। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ঢাকা টেস্টের দুই ইনিংস সহ সর্বশেষ ৭ ইনিংসেই ফিরেছেন দুই অঙ্ক ছোঁয়ার আগে। ইনিংসগুলো হল ০, ৯, ২, ৫, ৬, ২, ০। ক্যারিয়ারের প্রথম ১৪ টেস্টে ৬০-এর বেশি গড় অর্জন করা মুমিনুল ক্রমাগত খারাপ করতে করতে গড় নামিয়েছেন ৪০-এর নিচে। একটা লম্বা সময় তার চেয়ে বেশি টেস্ট গড় ছিল না কোনো বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানের। অথচ বর্তমানে তার গড় (৩৮.৩১) তামিম ইকবাল (৩৯.৫৩) ও সাকিব আল হাসানের (৩৯.১৭) চেয়েও নিচে।

তার ব্যাটিংয়ের কাটাছেঁড়ায় উঠে আসছে অধিনায়কত্ব প্রসঙ্গ। শেষ পর্যন্ত টেস্ট দলের দায়িত্ব ধরে রাখতে পারবেন তো? ফাহিমও মনে করেন, দলের দায়িত্ব এই ছাড়া উচিৎ মুমিনুলের। ফাহিম বলছিলেন, ‘ও রান করলে অধিনায়কত্ব নিয়ে এত কিছু বলতাম না। যেহেতু ভালো করছে না, এটা নিয়ে চাপ হচ্ছে, এমন কথা উঠবেই। সেটার প্রশ্নের উত্তর ওকে দিতে হচ্ছে। একটু চাপ তো থাকবেই।’

এদিকে গত শুক্রবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ঢাকা টেস্ট ১০ উইকেটে হারের পর ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের উদ্দেশে প্রশ্ন করা হয়, ‘মুমিনুল ফর্মে নেই আবার অধিনায়ক, এর আগে মাশরাফির ক্ষেত্রেও আমরা দেখেছি বিশ্বকাপে পারফর্ম করতে পারেননি, অফ ফর্মে থাকলে নেতৃত্বের ওপরও একটা বড় চাপ আসে, সেক্ষেত্রে বিসিবি কি ভাবছে?’ জবাবে পাপন বলেছিলে, ‘কাল-পরশু ওর সাথে বসবো লম্বা আলোচনায়। দেখি আলোচনা করে ও কী মনে করে, আমরা বের করে ফেলব।’

সেই আলোচনা কতদূর? বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস বলেন, ‘এটা সভাপতি (নাজমুল হাসান) কিছু দিন আগে পরিস্কার করেছেন। মুমিনুলের সাথে শুধু আমরাই না, সভাপতি সাহেবও বসবেন। উনি বসেছিলেন, তার সাথে কথা হয়েছে। তার সাথে হয়ত আরেকটু কথা বলা বাকি আছে। উনি দেশের বাইরে বলে এই সময়ে সম্ভব হচ্ছে না। আসার পর বসবেন।’