হতাশায় ছুড়ে মারা র‍্যাকেট গিয়ে লাগল শিশু দর্শকের মাথায়!

হতাশায় ছুড়ে মারা র‍্যাকেট গিয়ে লাগল শিশু দর্শকের মাথায়!

খেলা

ফরাসি ওপেনে র‍্যাকেট ছুড়ে মারার ঘটনায় শুরু হয়েছে তুমুল বিতর্ক। এই বিতর্কের কেন্দ্রে রোমানিয়ার খেলোয়াড় ইরিনা ক্যামেলিয়া বেগু। দ্বিতীয় রাউন্ডের একটি ম্যাচ চলাকালীন হতাশায় কোর্টে র‌্যাকেট আছড়ে মারেন তিনি। সেটি আচমকা লাফিয়ে উঠে দর্শকাসনে বসা এক খুদে দর্শকের মাথায় গিয়ে লাগে।

প্রচণ্ড ব্যথায় শিশুটি সঙ্গে সঙ্গে কাঁদতে শুরু করে। বেগু হতভম্ব হয়ে যান। পরিস্থিতি বুঝে চেয়ার আম্পায়ার সঙ্গে সঙ্গে খেলা বন্ধ করে দেন।

বেগুর প্রতিপক্ষ ছিলেন একাতেরিনা আলেকজান্দ্রোভা। তৃতীয় সেটে একটি ব্রেক পয়েন্ট কাজে লাগাতে না পেরে র‌্যাকেট সজোরে ছুড়ে মারেন কোর্টে। সেটিই গিয়ে ওই খুদে সমর্থকের মাথায় লাগে। চেয়ার আম্পায়ার সঙ্গে সঙ্গে গিয়ে পরিস্থিতি দেখেন এবং ম্যাচের সুপারভাইজারকে বিষয়টি দেখতে বলেন। কিছুক্ষণ পর তিনি খেলা শুরু করার নির্দেশ দেন। যদিও এতে বেগুর মনঃসংযোগ ব্যাঘাত ঘটেনি। রাশিয়ার আলেকজান্দ্রোভাকে ৬-৭, ৬-৩, ৬-৪ গেমে হারিয়ে তিনি তৃতীয় রাউন্ডে উঠেছেন।

ম্যাচ জিতলেও শাস্তির হাত থেকে রেহাই পাননি বেগু। তাকে ১০ হাজার ডলার জরিমানা করা হয়েছে। ম্যাচের পর ওই খুদে সমর্থকের সঙ্গে গিয়ে কথা বলেন বেগু। তার সঙ্গে ছবিও তোলেন। এরপর সাংবাদিকদের বলেন, ‘ওই মুহূর্তটা খুবই কঠিন ছিল। আমি র‌্যাকেট দিয়ে মোটেই কাউকে আঘাত করতে চাইনি। মাটিতে আঘাত করলে সেটা যে অতটা লাফিয়ে উঠতে পারে সেটা বুঝতেও পারিনি। খুব অপ্রস্তুত অবস্থায় পড়ে গিয়েছিলাম। এটা নিয়ে বেশি কথা বলতে চাই না। ক্ষমা চাইছি সবার কাছে। ‘

ক্ষমা চেয়ে, জরিমানা দিয়েও বাঁচতে পারছেন না বেগু। তাকে টুর্নামেন্ট থেকে বহিস্কারের দাবি উঠেছে। বেগুর প্রতিপক্ষ বা সমর্থক সবাই খুব বিরক্ত। তাদের প্রশ্ন, বল দিয়ে লাইন জাজকে আঘাত করার অপরাধে ২০২০ ইউএস ওপেন থেকে নোভাক জোকোভিচকে বরখাস্ত করা হয়েছিল। তাহলে এক্ষেত্রে বেগুকে কেন ফরাসি ওপেনে খেলতে দেওয়া হচ্ছে? এমনকি, গত ফেব্রুয়ারিতে র‌্যাকেট দিয়ে আম্পায়ারের চেয়ারে আঘাত করায় জার্মানির আলেকজান্ডার জেরেভকে আকাপুলকো ওপেন থেকে বের করে দেওয়া হয়।