গণকমিশনের বিরুদ্ধে তিন দাবি: দুদকে ইসলামিক ফোরাম

গণকমিশনের বিরুদ্ধে তিন দাবি: দুদকে ইসলামিক ফোরাম

জাতীয়

এক হাজার মাদ্রাসার তথ্য-উপাত্তের ওপর তদন্ত করে ১০০ ধর্ম ব্যবসায়ীর দুর্নীতির তদন্ত চেয়ে গণকমিশন নামে একটি সংগঠন দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) তালিকা জমা দিয়েছিল।

এবার সেই তালিকাকে চ্যালেঞ্জ করে গণকমিশনের বিরুদ্ধে স্মারকলিপি দিতে দুদকে হাজির হয়েছেন ইসলামিক কালচারাল ফোরাম বাংলাদেশের ১১ নেতা।

সোমবার (২৩ মে) বেলা ১১টার কিছু পরে সংগঠনটি উপদেষ্টা অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরীর নেতৃত্বে ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির ১১ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল হাজির হন।

ইতোমধ্যে তারা তিনটি দাবি নিয়ে দুদক সচিব মো. মাহবুব হোসেনের সঙ্গে দেখা করেছেন।

যার মধ্যে রয়েছে- ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আয়-ব্যয় ও তহবিলের উৎস সম্পর্কে অনুসন্ধান। ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির নেতাদের সম্পদের উৎস ও আয় ব্যয়ের হিসাব। গণকমিশনের শ্বেতপত্রের অর্থের জোগান দাতার তথ্য খোঁজ নিতে তারা দুদক চেয়ারম্যানের সাক্ষাৎ চেয়েছেন।

দুদকে উপস্থিত নেতারা হলেন- উপদেষ্টা অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী,সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা মো. নাজমুল হক, নির্বাহী সদস্য মাওলানা আবু জাফর কাসেমী মাওলানা মানসূরুল হক, মাওলানা আবুল কাসেম আশরাফী, মাওলানা রিয়াদুল ইসলাম, মুফতি আব্দুর রাজ্জাক কাসেমী, মুফতি ওয়াহিদুল আলম মুফতি আব্দুর রহিম, কাসেমী আলহাজ ফজলুল হক হাফেজ মাওলানা মোতাহার উদ্দিন I

এর আগে গত ১১ মে এক হাজার মাদ্রাসার তথ্য-উপাত্তের ওপর তদন্ত করে ১০০ ধর্ম ব্যবসায়ীর দুর্নীতির তদন্ত চেয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) তালিকা জমা দিয়েছিল ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সমন্বয় গঠিত গণকমিশন।

দুদক চেয়ারম্যান মঈনউদ্দীন আবদুল্লার কাছে এই শ্বেতপত্র ও ১০০ সন্দেহভাজন ধর্ম ব্যবসায়ীর ব্যক্তির তালিকা তুলে দেওয়া হয়। গণকমিশনের চেয়ারম্যান বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক ও সদস্য সচিব ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দল এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

তালিকা জমা দেওয়ার পর গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, আমরা ৯ মাস তদন্ত করেছি। বহু ভুক্তভোগীর সাক্ষ্য নিয়েছি। ২২শ পৃষ্ঠার প্রতিবেদন গত মার্চে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে দিয়েছি। তিনি ব্যবস্থা নেবেন বলে আমাদেরকে আশ্বস্ত করেছেন। ধর্মান্ধ গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে আমরা দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছি। তারা মানিলন্ডারিং করেছে। জামায়াত ও ধর্ম ব্যবসায়ী গোষ্ঠীকে অর্থায়ন করা হচ্ছে। সেই দুর্নীতির তথ্য দিলাম। তাদেরকে বাড়তে দেওয়া যায় না।

দুদক চেয়ারম্যানের বক্তব্য তুলে ধরে সাবেক এই বিচারপতি বলেন, দুদক চেয়ারম্যান জানিয়েছেন অর্ধশতাধিক ওয়াজ ব্যবসায়ীর দুর্নীতির খোঁজ শুরু করেছেন। আমাদের রিপোর্ট দুদক আইন মতে ব্যবস্থা নেবেন। যারা অপরাধ করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মামনুল হকসহ যারা আছে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলমান রয়েছে।

মানিক বলেন, আমাদের শ্বেতপত্র দুদকের কাজে আসবে। ডিসি, এসপি ও ইউএনওসহ যারা এই গোষ্ঠীদের উস্কানি দেয় তাদের নাম উল্লেখ করেছি। বিশেষ করে নোয়াখালীর এসপির বিরুদ্ধে বলেছি। তাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে হবে।

গণকমিশনের সদস্য সচিব ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ বলেন, আমরা এক হাজার মাদ্রাসা ও ওয়াজকারীদের ওপর তদন্ত করেছি, শ্বেতপত্রে বিস্তারিত আছে। সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী ও হেফাজতের কর্মকাণ্ড উঠে এসেছে। তাদের অর্থনৈতিক জবাবদিহিতার আওতায় আনা হবে বলে আমরা প্রত্যাশা করছি।