ওয়েস্ট হ্যামের সাথে ড্র করলো সিটি

ওয়েস্ট হ্যামের সাথে ড্র করলো সিটি

খেলা

দুই গোলে পিছিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত ওয়েস্ট হ্যামের সাথে ২-২ গোলের ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। আর এই এক পয়েন্টের কারনে এখনো প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা দৌঁড়ে টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে থাকা লিভারপুলের থেকে চার পয়েন্ট এগিয়ে গেছে সিটিজেনরা।

এদিকে বার্নলিকে ১-০ গোলে পরাজিত করে শীর্ষ চারে উঠে এসেছে টটেনহ্যাম হটস্পার।

গত পাঁচ বছরে চতুর্থ বারের মত লিগ শিরোপা নিশ্চিতে সিটিজেনদের বাকি থাকা দুই ম্যাচে চার পয়েন্টই যথেষ্ট। এমন সমীকরন সামনে রেখে পেপ গার্দিওলার দল লন্ডন স্টেডিয়াম সফরে গিয়েছিল। কিন্তু ইনজুরি আক্রান্ত সিটির রক্ষনভাগের দূর্বলতাকে পুরোপুরি কাজে লাগিয়ে হ্যামার্সরা প্রথমার্ধেই ২-০ গোলে এগিয়ে যায়। দুটি গোলই করেন জারড বোয়েন। রক্ষনভাগে কাল ছিলেন না রুবেন ডিয়াস, জন স্টোনস ও কাইল ওয়াকার।

ইনজুরির কারনে এদের প্রত্যেকেরই মৌসুম শেষ হয়ে গেছে। বদলে যাওয়া রক্ষনভাগ সহজেই ওয়েস্ট হ্যামের কাউন্টার এ্যাটাকের কাছে ধরাশায়ী হয়েছে। ২৪ মিনিটে পাবলো ফোরলান্ডের পাস থেকে এডারসনকে কাটিয়ে বল জালে জড়াতে একটু ভুল করেনি বোয়েন। ফেব্রুয়ারির পর থেকে এটাই বোয়েনের প্রথম লিগ গোল। এই গোলের পরও শিক্ষা হয়নি সিটিজেনদের। অফসাইড ট্রাক ভেঙ্গে প্রথমার্ধের একেবারে শেষ মিনিটে লো শটে আবারো বোয়েন গোল করলে ব্যবধান দ্বিগুন হয়।

দুই গোলে পিছিয়ে থাকলেও চ্যাম্পিয়নরা শিরোপার স্বপ্ন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়নি। বিরতির চার মিনিট পর জ্যাক গ্রীলিশের গোলে সিটি শিবিরে স্বস্তি ফিরে আসে। একইসাথে ১০০ মিলিয়ণ পাউন্ডের প্রাইস ট্যাগের মর্যাদা কিছুটা হলেও রাখতে সক্ষম হন গ্রীলিশ। ওয়েস্ট হ্যাম তারপরও গোল ব্যবধান বাড়ানোর বেশ কিছু সুযোগ পেয়েছিল। বোয়েনের একটি শট অল্পের জন্য পোস্টের বাইরে দিয়ে চলে যায়।

মিখাইল এন্টোনিও এডারসনকে একা পেয়েও গোলের সুযোগ হাতছাড়া করেছেন। ৬৯ মিনিটে রিয়াদ মাহারাজের ফ্রি-কিক থেকে ভøাদিমির কুফালের আত্মঘাতি গোলে সিটির পরাজয় এড়ানো সম্ভব হয়। ম্যাচ শেষের চার মিনিট আগে স্পট কিক থেকে মাহরেজের শট রুখে দেন লুকাস ফ্যাবিয়ানিস্কি। নাহলে হয়ত তখনই এগিয়ে যেতে পারতো সিটিজেনরা।

ম্যাচ শেষে গার্দিওলা বলেছেন, ‘এখন আর গোল ব্যবধান নিয়ে কোন বিতর্ক নেই। শুধুমাত্র শেষ ম্যাচে জিততে হবে, তাহলেই শিরোপা নিশ্চিত।’

টটেনহ্যাম হটস্পার স্টেডিয়ামে বার্নলির বিপক্ষে হ্যারি কেনের পেনাল্টিতে স্পার্সদের জয় নিশ্চিত হয়। এই জয়ে এন্টোনিও কন্টের দল আর্সেনালকে দুই পয়েন্টের ব্যবধানে পিছয়ে ফেলে টেবিলের চতুর্থ স্থানে উঠে এসেছে। আগামী মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলতে হলে মিকেল আর্তেতার আর্সেনালের ম্যাচের ফলাফলের দিকেও তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে। কন্টে বলেন, পরিস্থিতি এখনো তাদের হাতে। কারন তাদের দুটি ম্যাচ বাকি আছে। কিন্তু এটা ইংল্যান্ড, এখানে জয় পাওয়াটা এতটা সহজ নয়।

ঘরের মাঠে ব্রাইটনের সাথে ১-১ গোলে ড্র করেছে লিডস। যে কারনে বার্নলি রেলিগেশন জোনে নেমে গেছে। প্রিমিয়ার লিগে টিকে থাকতে হলে বাকি থাকা দুই ম্যাচে জয়ের বিকল্প নেই।

এলান রোডে ড্যানি ওয়েলবেকের গোলে ২১ মিনিটেই এগিয়ে গিয়েছিল ইন-ফর্ম ব্রাইটান। কিন্তু ব্যবধান দ্বিগুন করার সুবর্ন সুযোগ তারা হাতছাড়া করেছে। উল্টো স্টপেজ টাইমে পাসকাল স্ট্রুইজিকের গোলে সমতা ফেরায় লিডস।