কাহারোলে আখের সাথে ২য় সাথীফসল চাষাবাদ শীর্ষক মাঠ দিবস

কাহারোলে আখের সাথে ২য় সাথীফসল চাষাবাদ শীর্ষক মাঠ দিবস

দিনাজপুর

দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলায় ‘আধুনিক প্রযুক্তিতে লাভজনক ভাবে আখের সাথে ২য় সাথীফসল চাষাবাদ’ শীর্ষক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার (১৫ মে ২০২২) দুপুরে বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউট কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন আখের সাথে সাথীফসল হিসেবে ডাল, মসলা ও সবজী জাতীয় ফসল উৎপাদন প্রকল্পের আওতায় দিনাজপুর এলাকায় স্থাপিত প্রদর্শণী প্লটসমুহে আখ ও আখের সাথে ২য় সাথীফসল হিসেবে মুগডাল ও গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষ বিষয়ে এই মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়।

মাঠ দিবস উপলক্ষ্যে উপজেলার গড়মল্লিকপুর দাখিল মাদ্রসায় আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল।

এসময় মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে প্রতিটি বাজেটে কৃষিতে গবেষণার জন্য বরাদ্দ দিয়েছে। এর ফলে কৃষক একই জমিতে সাথী ফসল উৎপাদন করছে। বাংলাদেশ খাদ্যে সয়ংসম্পুর্ণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারণে।

তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল বলেছেন- বাংলাদেশ খুবই শীঘ্রই শ্রীলঙ্কার মত হবে। কিন্তু ঈদুল ফিতরে বাংলাদেশের প্রতিটি ইউনিয়নে ৮ হাজার পরিবারের মাঝে ভিজিএফ কার্ডের মাধ্যমে বিনামূলে চাল দিয়েছেন শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ কাঙ্খিত লক্ষে পৌছাবেই। এক কথায় শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলে বাংলাদেশে কখনও দুর্ভিক্ষ হবে না।

ঠাকুরগাঁও আরএসআরআই এর প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (অ.দা.) ও ইনচার্জ ড. মো. শরিফুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর দিনাজপুর অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ প্রদীপ কুমার গুহ, সেতাবগঞ্জ সুগারমিল লি. এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. হুমায়ুন কবীর, বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএসআরআই), ঈশ্বরদী, পাবনা’র প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রকল্প পরিচালক ড. মো. আবু তাহের সোহেল, বিএসআরআই এর কীটতত্ত্ব বিভাগের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. নূর আলম।

সঞ্চালনায় ছিলেন বিএসআরআই এর বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. রাশেদুল ইসলাম।

এর আগে আখ ও আখের সাথে ২য় সাথীফসল হিসেবে দিনাজপুর এলাকায় স্থাপিত প্রদর্শণী প্লটসমুহ মুগডাল ও গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষ পরিদর্শন করেন মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপিসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ এবং বিএসআরআই এর বিজ্ঞানীবৃন্দ।

আয়োজকরা জানান, কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবের কারণে সৃষ্ট খাদ্য নিরাপত্তা ঝুকি মোকাবেলায় আখের সাথে সাথী ফসল হিসেবে ডাল, মসলা ও সবজী জাতীয় ফসল উৎপাদন বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশের খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা অর্জনে সহায়তাপূর্বক কৃষকের জীবনমান উন্নত করাই এই মাঠ দিবসের উদ্দেশ্য। মাঠ দিবসে ৮০ জন কৃষক উপস্থিত ছিলেন। যারা আখ ও আখের সাথে ২য় সাথীফসল প্লটসমুহ ঘুরে দেখেন এবং চাষাবাদে উদ্বুদ্ধ হন।

মাঠ দিবসে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বক্তারা বলেন, দেশের খাদ্য ঘাটতি মোকাবেরঅয় সাথী ফসল চাষ একটি সাহয়ক প্রচেষ্টা। দারিদ্র পীড়িত চাষী ভাইদের অতিরিক্ত একটি ফসল ফলিয়ে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। আর আখ চাষীগণ সাথী ফসল চাষের দ্বারা আখ চাষের অন্তঃবর্তীকালীন সময়ে অতিরিক্ত আয়সহ আরও বেশি পরিমাণ আখ ও সাথী ফসল উৎসপাদন করে চিনি, গুড় ও অন্যান্য খাদ্য ঘাটতি পূরণে অবদান রাখতে পারবে।