এবারের ঈদ উত্সবে তারা সুতারিয়ার নতুন সিনেমা

এবারের ঈদ উত্সবে তারা সুতারিয়ার নতুন সিনেমা

বিনোদন

এবারের ঈদ উত্সবে মুক্তি পাচ্ছে টাইগার শ্রফ-তারা সুতারিয়ার অ্যাকশন অ্যাডভেঞ্চার সিনেমা ‘হিরোপাত্তি টু’। ২০১৫ সালে হিরোপান্িত সিনেমার মাধ্যমেই বলিউডে পা রেখেছিলেন জ্যাকি শ্রফের ছেলে টাইগার। এবার সেই হিরোপান্তিরর দ্বিতীয় পার্ট রিলিজ করতে চলেছে। ‘হিরোপান্তি টু’ ছবিতে টাইগার শ্রফ অভিনীত চরিত্রের নাম বাবলু এবং তারা সুতারিয়ার অভিনীত চরিত্রের নাম ইনায়া। বাবলু আর ইনায়ার রোমান্স। তার সঙ্গে অ্যাকশন।

কিছুদিন আগে মুক্তি পেয়েছিল তারা সুতারিয়া অভিনীত রোমান্টিক অ্যাকশন সিনেমা ‘তাড়াপ’। সেখানে সুনীল শেঠিপুত্র আহান শেঠির সাথে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন তিনি।

‘তাড়াপ’ ছবিতে তার কাজের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে তারা বলেন, ‘তাড়াপ’-এ আমার ভূমিকা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। মূল তেলেগু ছবি ‘আরএক্স হান্ড্রেড’ যারা দেখেছেন, তারা আমার কথা বুঝতে পারবেন। ছবি মুক্তি পাওয়ার পরে আমার আর অহনের রসায়ন বেশ প্রশংসা পেয়েছে। এটা সত্যি যে আমি বেশ লাজুক, তবে অহনের চেয়ে খানিকটা কম। তিন বছর হয়ে গেল ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করছি। তাই এখন আগের চেয়ে অনেকটাই সহজ হতে পারি ক্যামেরার সামনে। শুট শুরু করার আগে আমাদের দুজনকেই একসঙ্গে অনেক ওয়ার্কশপ করতে হয়েছে। সেটা ক্যামেরার সামনে খুব কাজেও দিয়েছিল। অহনের চোখ দুটো খুব সুন্দর। সেটা ক্যামেরায় ধরা হয়েছে সুন্দরভাবে।’

তারা সুতারিয়া কিশোর বয়সেই অভিনয় জগতে পা রাখেন। তিনি ‘দ্য সুইট লাইফ অফ করণ’র মতো শিশুদের সিটকমে অভিনয় করেছিলেন। পরে ২০১৯ সালে টাইগার শ্রফ এবং অনন্যা পান্ডের সঙ্গে ‘স্টুডেন্ট অফ দ্য ইয়ার টু’ ছবিতে বলিউডে আত্মপ্রকাশ করেন। একই বছরে তিনি অ্যাকশন ফিল্ম ‘মারজাওয়ান’-এ একজন বোবা মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।

এবারের ঈদ উত্সবে তারা সুতারিয়ার নতুন সিনেমা আসছে। ফলে তাকে নিয়ে নতুন করে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে বৈকি। তারা নিজেও বেশ উচ্ছ্বসিত।

তিনি বলেন, ‘আমি এর মধ্যে বলিউডে নিজেকে যতটা সম্ভব এগিয়ে নিয়েছি, এবার ‘হিরোপান্তি টু’ আরও বেশ খানিকটা সামনে নিয়ে আসবে আমাকে। এ ছবিটির জন্য অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে, সব পরিশ্রম সার্থক হবে যদি ছবিটি দর্শক সাদরে গ্রহণ করেন। আমি তেমন প্রত্যাশা নিয়ে অপেক্ষা করছি।’

এবার বলিউডের তন্বী এই অভিনেত্রীর জন্য বড় একটি পরীক্ষা হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে মুক্তি প্রতীক্ষিত ‘হিরোপান্তি টু’ ছবিটি। দেখা যাক, শেষ পর্যন্ত তারার ভাগ্যে কী লেখা রয়েছে।