হত্যার বিচার ও ক্ষতিপূরণের দাবিতে দিনাজপুরে বড় ভাইয়ের সংবাদ সম্মেলন

হত্যার বিচার ও ক্ষতিপূরণের দাবিতে দিনাজপুরে বড় ভাইয়ের সংবাদ সম্মেলন

দিনাজপুর

সংবাদ সম্মেলনঃ ২৭ এপ্রিল দিনাজপুর ক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে চিরিরবন্দর উপজেলার খেরকাটি গ্রামের মৃত কুমির উদ্দিন মন্ডলের পুত্র মোঃ আমিনুল ইসলাম লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন চিরিরবন্দরের নিভৃত পল্লীতে ১০ চাকার ড্রামট্রাক চলাচলকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হন স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা আবুল কালাম মন্ডল।

ঘটনার বিবরণে আমিনুল ইসলাম বলেন, গত ২৯ শে মার্চ রাতে ৯ নম্বর ভিয়াইল ইউনিয়নের ধুর ইল মৌজার বালু মহালের বালু উত্তোলনের জন্য ১০ চাকার ড্রামট্রাক যাহার নম্বর ঢাকা মেট্রো ট ১৫-৯৯৭০ বালু পরিবহন করার সময় খেরকাটি বাজারে আতাউর রহমানের সাইকেল পার্টেসর দোকানের সামনে বৈদ্যুতিক মিটার ও তার ছিঁড়ে ফেলে। এরপর স্থানীয় লোকজন ও ট্রাকসহ ৪/৫টি ড্রাম ট্রাক আটক করে।

এ ব্যাপারে মীমাংসার বৈঠক বসলে বালু মহালের সুবিধাভোগী এবং ড্রামট্রাক চালুর পক্ষের সন্ত্রাসী মোঃ আলমগীর হোসেন, মোঃ মিলন মোল্লা, রবিউল ইসলামসহ ১০/১৫ জন সন্ত্রাসী আমার ভাইয়ের উপর অতর্কিত হামলা করে বেধড়ক পেটাতে থাকে। নির্দয়ভাবে পেটানোর একপর্যায়ে আমার ভাই জ্ঞান হারিয়ে ফেললে স্থানীয়রা উদ্ধার করে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির জন্য নিয়ে যায়, কিন্তু সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক আমার ভাই আবুল কালাম মন্ডলকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ব্যাপারে দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় ৩০/০৩/২২ তারিখে একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয় তার নং ৯৫/২০২২।

এরপরে চিরিরবন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ নেতৃবৃন্দ আমার চাচার সঙ্গে যোগাযোগ করে বলেন স্থানীয়দের আটককৃত ড্রামট্রাক গুলো থানায় নিয়ে যাচ্ছি আগামীকাল ৩১/০৩/২২ থানায় মিমাংসা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে, আপনারা থানায় আসবেন। আমরা থানায় গিয়ে দেখতে পাই ড্রাম ট্রাক গুলো থানায় নেই। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অফিসার্স ইনচার্জ বলেন আমরা দেখছি, আপনি এজাহার করেন তবে মামলা গ্রহণেও তিনি গরিমশি করতে থাকেন। সন্ত্রাসীর আমার ভাইকে হত্যা করল অথচ পুলিশ মামলা গ্রহণ করছে না ।

পরে আমরা দিনাজপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ৯ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করি, যার মামলা নম্বর ৭৩সি/২০২২ ইং। আমার ভাইয়ের অবুঝ দুটি শিশু সন্তান রয়েছে যাদের রোজগার করে খাওয়ানোর মতো কোনো অভিভাবক এখন আর কেউ নেই । আমরা মানবতার মা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এমন ন্যক্কারজনক হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, পরিবারের জন্য ক্ষতিপূরণ ও ন্যায় বিচার দাবি করছি। সংবাদ সম্মেলনে আমিনুল মণ্ডল এর পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মোঃ মাহাবুর মন্ডল। উপস্থিত ছিলেন আমিনুল মন্ডল, ওয়াহেদ আলী, মোঃ ইমদাদুল হক ও নজরুল ইসলাম।