কুড়িগ্রামে দৃষ্টিনন্দন শিশু পার্ক নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলছে

কুড়িগ্রামে দৃষ্টিনন্দন শিশু পার্ক নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলছে

রংপুর

কুড়িগ্রামে জেলা পরিষদ কর্তৃক দৃষ্টিনন্দন শিশু পার্কের উন্নয়ন কাজ এগিয়ে চলছে। কুড়িগ্রাম সদর উপজেলায় পুরাতন শহরে শিশু, অভিভাবক ও ভ্রমন পিপাসুদের জন্য এই প্রথম জেলায় তৈরি হচ্ছে একটি দৃষ্টিনন্দন শিশু পার্ক।

বর্তমানে কুড়িগ্রামে এধরনের উন্নতমানের দৃষ্টিনন্দন শিশু পার্ক না থাকায় অভিভাবকরা তাদের ছেলে মেয়েদের নিয়ে ধরলা ব্রীজের পাড় বেড়াতে নিয়ে আসে। শিশু পার্কটি নির্মাণ কাজ শেষ হলে বিনোদনের জন্য ছুটির দিনগুলোতে ঘরবন্দি শিশুদের নিয়ে অভিভাবকরা ঘুরতে যেতে পারবেন।এছাড়াও প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে শিশুরাও এই শিশু পার্কে এসে আনন্দ ভোগ করতে পারবে। পার্কটির ভিতরে শিশুদের জন্য সাজানো হয়েছে বিভিন্ন ধরণের খেলনা সামগ্রী যা শিশুদের আকৃষ্ট করবে।

এরইমধ্যে শহরের সিংহভাগ লোকের মুখে একটিই কথা এতসুন্দর উন্নতমানের শিশু পার্ক কুড়িগ্রামে হচ্ছে বিনোদনের জন্য আমাদের ছেলে মেয়েদের নিয়ে জেলার বাইরে আর যেতে হবেনা।এদিকে প্রতিদিন বিকেল হলে স্থানীয় শিশুরা শিশু পার্কটি একনজর দেখার জন্য পার্কের বাইরে এসে ভিড় করছে। উল্লেখ্য ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের এডিপির ১কোটি পঁিচশ লক্ষ একান্ন হাজার টাকায় ঠিকাদার মাধ্যম চুক্তিমূল্যে প্রায় অর্ধেক নির্মাণ কাজটি আংশিক সম্পন্ন হয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবু মোঃ সাঈদ হাসান লোবান বলেন, দীর্ঘদিন পরে কুড়িগ্রামে শিশুদের বিনোদনের জন্য শহরের প্রাণকেন্দ্রে এত সুন্দর একটি দৃষ্টিনন্দন পার্ক হচ্ছে ভাবতেই অবাক লাগছে।আশাকরি নির্মাণাধীন কাজটি দ্রুত শেষ করে পার্কটি খুলে দেয়া হলে শিশুসহ দর্শকের আগমনে এই এলাকা আনন্দে মূখরিত হবে। এজন্য আমি কুড়িগ্রাম জেলা পরিষদ কর্তৃপক্ষকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

শিশু পার্ক নির্মাণ বিষয়ে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ফরিদুল ইসলাম জানান, ”আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যত”। সেই শিশুদের বিনোদনের কথা চিন্তা করে জেলা পরিষদ এই শিশু পার্ক উন্নয়ন প্রকল্পটি গ্রহন করা হয়েছে। আশাকরি চলতি অর্থবছরে নির্মাণাধীন কাজটি শেষ হওয়ার সম্ভাবনা আছে। তবে পার্কটি নান্দনিক ও দৃষ্টিনন্দন করতে ডিজাইন এ্বং প্লানে কিছু সংযোজন করা হয়েছে। সেক্ষেত্রে মন্ত্রনালয় হতে অতিরিক্ত বরাদ্দ পাওয়া সাপেক্ষে কাজটি সম্পন্ন করা হবে এবং শিশুদের কাঙ্খিত পার্কটি উন্মুক্ত করা হবে।