গ্রীষ্মে ত্বকের যত্নে শসা

সাজগোজ টিপস

শসা খুবই গুণের একটি সবজি। যা কেবল খেতেই স্বাস্থ্যকর নয়, রূপচর্চায়ও অনন্য। বিশেষ করে গ্রীষ্মে ত্বকের যত্নে শসা খুবই উপকারী। এটি ত্বকের নানাবিধ জটিল সমস্যার সহজ সমাধান।

শসায় রয়েছে প্রাকৃতিক কুলিং পাওয়ার, যা শরীর ও ত্বক ঠাণ্ডা রাখে। এছাড়া শসা থেকে ভিটামিন এ, বি১, সি, পটাসিয়াম, বায়োটিন ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট পাওয়া যায়। এটি খেলে শরীরের যেমন পূরণ হয় পানির চাহিদা, তেমনি ত্বক থাকে উজ্জ্বল ও সুন্দর।

রূপচর্চায় শসার ব্যবহার সম্পর্কে বিস্তারিত-

ত্বক টানটান রাখতে: শসা পাতলা পেস্ট করে ত্বকে লাগিয়ে রাখুন। ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহার করলে ত্বক হবে বলিরেখাহীন।

ব্রণ দূর করতে: শসা, অ্যালোভেরা জেল, শসার রস ও টি ট্রি অয়েল একসঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিন। মিশ্রণটি ত্বকে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন।

রোদে পোড়া দাগ দূর করতে: শসার রস, লেবুর রস ও গোলাপজল একসঙ্গে মিশিয়ে ত্বকে স্প্রে করুন। ১০ মিনিট পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বকের রোদে পোড়া দাগ দূর হবে।

চোখের ক্লান্তি দূর করতে: ক্লান্ত ও ফুলে যাওয়া চোখের জন্য ফ্রিজে রাখা ঠাণ্ডা শসার স্লাইস ব্যবহার করতে পারেন। চোখের উপর ১০ মিনিট দিয়ে রাখুন শসার স্লাইস। শসা, অ্যালোভেরা জেল ব্লেন্ড করে নারকেল তেল মিসিয়ে ফ্রিজে রেখে বরফ জমিয়ে নিন। আইস কিউব চোখের আশেপাশে বুলিয়ে নিন। দূর হবে ডার্ক সার্কেল।

উজ্জ্বল ত্বকের জন্য: শসার রসের সঙ্গে কফি গুঁড়া ও মধু মিশিয়ে ত্বকে লাগান। আধা ঘণ্টা পর ঘষে ঘষে উঠিয়ে ফেলুন। পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। ত্বক হবে উজ্জ্বল ও কোমল। সপ্তাহে দুইবার ব্যবহার করুন এই প্যাক।

শুষ্ক ত্বকের যত্নে: অর্ধেকটি শসা কেটে পেস্ট বানিয়ে নিন। এক টেবিল চামচ টক দই মিশিয়ে ত্বকে লাগান। ২০ মিনিট পর কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন ত্বক। দূর হবে ত্বকের রুক্ষতা।