চিরিরবন্দরে ব্যক্তি মালিকানাধীন জমিতে আশ্রায়ন প্রকল্পের ঘর তোলার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

দিনাজপুর

সংবাদ সম্মেলনঃ দিনাজপুরের চিরিবন্দরে ব্যক্তি মালিকানার্ধীন জমিতে আশ্রায়ন প্রকল্পের ঘর তোলা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ক্ষতিগ্রস্থ্য পরিবারের সদস্যরা। ৮ এপ্রিল শুক্রবার সকালে দিনাজপুর প্রেস ক্লাবে মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তুলে ধরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য চান তারা।

সংবাদ সম্মেলনে ৫নং আব্দুলপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের স্থায়ীয় বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম সরকার জানান, কাকড়া নদীর পূর্ব পাশের্^ ঈদগাহমাঠ সংলগ্ন চিরিরবন্দর মৌজার “ক তপশীল” ভুক্ত জে,এল,নং-৬১, দাগ-৪০২৪/৫৮৫৮, খতিয়ান নং-১ সম্পত্তি তার মরহুম পিতা মকছেদ আলী সরকার তৎকালিন জেলা প্রশাসকের কাছে ১৯৬৬ সালে প্রথম শ্রেণীর কবলা দলিল মুলে ৩ একর জমি খরিদ করে ছিলেন। উত্তরাধীকার সূত্রে মালিকানা প্রাপ্ত হয়ে তপশীল বর্ণিত সম্পত্তিতে তিনিসহ অন্যান্য্য অংশিদারদার ভোগ দখল করে আসছেন। বর্তমানে মেহগনিগাছ, লিচুর বাগান নেপিয়ার ঘাস এবং কলাগাছ সহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছপালা চাষাবাদ করছেন তারা। অবৈধভাবে উচ্ছেদের ফলে আর্থিক ক্ষয়ক্ষতির আশংকা তাদের।

তপশীল বর্ণিত ওই জমি ১৯৬৫- ১৯৬৬ সালে কেস খারিজ ( ঢওও/২৩৬) খারিজ করেছেন তারা। খাজনাসহ দলিলপত্রাদি রয়েছে হাল নাগাদ । তথাপি বর্ণিত সম্পত্তির নকশা (স্কেস ম্যাপ) উপেক্ষা করে চিরিরবন্দর উপজেলা প্রশাসন জোর জোবস্তি ভাবে আশ্রয়ণ প্রকল্পের জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) নির্মান কাজের ভিক্তিপ্রস্থর স্থাপন করেছে। এসময় আপত্তি জানালে তার ছেলে সেলিম সরকারকে পুলিশ দিয়ে আটক করে ৮ এপ্রিল শুক্রবার আদালতে প্রেরন করেছে, অন্য অংশিদারদেরকে পুলিশ দিয়ে দেখানো হচ্ছে ভয়ভীতি।

অভিযোগ তিনি আরো জানান, ২০০৩ সালে উপজেলা প্রশাসন এবং পিআইও ওই জমিতে ঘর তুলতে গেলে সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মোকদ্দমা দ্বায়ের করেছিলেন তারা। মোকদ্দমা নং-১৬/২০০৩। বাটোয়ারা মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে এবং আগামী ১৯ এপ্রিল শুনানী রয়েছে। অন্যদিকে ওই সম্পত্তি থেকে সিরাজুল ইসলামসহ অন্যান্য অংশিদারদের উচ্ছেদ অতবা গাছ কাটা যাবেনা বলে ২০১৩ সালের ২৭ নভেম্বর হতে আদালতের জেলা প্রশাসক এবং উপজেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে অস্থায়ী ও অন্তবর্তীকালীন নিষেধজ্ঞা জারি রয়েছে (ঝঞঅঞটঝ ছটঙ) বলে দাবি করেছেন তিনি। যথাযথ দলিল পত্র আমলে নিচ্ছেনা উপজেলা প্রশাসন। হয়রানি বন্ধসহ ন্যায় এবং আইন সংগত নিষ্পত্তি দাবি করেছেন ক্ষতিগ্রস্থরা।

অন্যদিকে গত বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) বিকেলে উপজেলার ৫নং আব্দুলপুর ইউনিয়নের রেলওয়ে ব্রীজ সংলগ্ন এলাকায় গুচ্ছ গ্রামে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রায়ণ-২ প্রকল্পের নির্মান কাজের উদ্বোধন করেছেন চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আয়েশা সিদ্দীকা। ভূমিহীন ও গৃহহীন অর্থাৎ ‘ক’ শ্রেণির পরিবারের জন্য নির্মাণ করা হবে সরকারি ভাবে বিনা পয়সায় ঘর। ৩য় দফায় নির্মাণ করা হবে ১৫৫ টি ঘর।

সংবাদ সম্মেলনে সিরাজুল ইসলামের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মো: মাসুদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন মো: সাখাওয়াত হোসেন।