রংপুরে দুই স্কুল ছাত্রী অপহরণ, নারীর ১৪ বছরের দণ্ড

রংপুর

রংপুরের কাউনিয়ায় দুই স্কুল ছাত্রীকে অপহরনের দায়ে স্বপ্না রানী ওরফে লাইজু বেগম নামে এক মহিলার ১৪ বছরের কারাদণ্ড এবং পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। অনাদায়ে আরো ১ মাসের দণ্ড দিয়েছেন।

বুধবার দুপুরে রংপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ৩ এর বিচারক এম আলী আহমেদ এই আদেশ দেন। এ সময় আসামি পলাতক ছিলেন।

সরকার পক্ষের আইনজীবী তাজেবুর রহমান লাইজু জানান, ২০১০ সালের ৫ আগস্ট কাউনিয়া উপজেলার ধর্মেশ্বর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীর দুই শিক্ষার্থী শাহিমা (৭)জিনাত জাহান (৭)কে স্কুলে যাবার পথে অপহরণ করেন স্বপ্না। ঘটনার দিনই অপহরণ হওয় দুই শিশু ও স্বপ্না রানীকে আটক করে স্থানীয় জনতা। পরে তাকে থানায় হস্তান্তর করে।

এই ঘটনায় শাহিমার বাবা মোঃ ফেরদৌস বাদী হয়ে ঘটনার দিনই কাউনিয়া থানায় একটি অপহরণ মামলা করেন। তাতে একমাত্র আসামি করা হয় স্বপ্নাকে। জিনাত জাহান ফেরদৌস এর ভাতিজি। তবে, স্বপ্না জামিনে মুক্ত হন। সেই থেকে পলাতক সে।

আদালত সুত্র জানিয়েছে, এ ঘটনায় কাউনিয়া থানার উপ পুলিশ পরিদর্শক ( এসআই) আমিনুল ইসলাম ২০১০ সালের ৮ ডিসেম্বর একটি অভিযোগ দাখিল করেন, তাতে ১৫ জনকে সাক্ষি করা হয়। কিন্তু আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন ১৩ জন।
জানা গেছে, স্বপ্না রানি জামিন নেয়ার পর থেকেই পলাতক থাকায় সরকার পক্ষ তার মামলাটি পরিচালা করে।

স্বপ্না রানী ওরফে লাইজু বেগম রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার পদাগঞ্জ এলাকার বকশি পাড়ার শওকত আলীর মেয়ে।

সরকার পক্ষের পিপি ও আসামীর আইনজীবী জানান, আসামি চাইলে এ বিষয় উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে।