Muktijodhaশাহ্ আলম শাহী,দিনাজপুর থেকেঃ দিনাজপুরে  মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নির্বাচন জমে উঠেছে। বুধবার ( ৪ জুন) অনুষ্ঠিত হবে নির্বাচন। ৩টি ফুল প্যানেল এবং একটি অর্ধ প্যানেল এবার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। এ নির্বাচনকে ঘিরে চরমভাবে আচরণ বিধি লংঘন এবং চাঁদাবাজি’র অভিযোগ উঠেছে। অনেকেই নির্বাচনী আচরণ বিধি লংঘন করে রঙিন পোষ্টার,ব্যানার তৈরী এবং দেয়াল ও স্থাপনায় সাটিয়েছেন। দির-রাত মাইকিং করে প্রচারণা চালাচ্ছেন। নির্বাচনের দিনে খাওয়া-দাওয়া(ভুড়িভোজ) করার অজুহাতে জেলা শহর থেকে শুরু করে উপজেলার বিশিষ্ট জন, ব্যবসায়ী, অফিস ও প্রতিষ্ঠানে নগদ অর্থরে দাবী করছে কেউ কেউ।

এই নির্বাচনে দিনাজপুর জেলা কমান্ডের নেতৃত্বে আসার জন্য সাবেক জেলা কমান্ডার  সৈয়দ মোকাদ্দাস হোসেন বাবলু, তার আগের  জেলা কমান্ডার  মকসেদ আলী মঙ্গলিয়া ও সাবেক ডেপুটি কমান্ডার সিদ্দিক গজনবীর নেতৃত্বে ৩টি পুর্ণাঙ্গ প্যানেল  নির্বাচনী লড়াইয়ে লড়ছেন। এছাড়া কয়েকজন বিচ্ছিনভাবে প্রার্থী হওয়ার পর নিজেদের মধ্যে সমঝোতা করে একটি অর্ধ প্যানেল নিয়েও লড়ছেন।

এবারের নির্বাচনে দিনাজপুর জেলায় ভোটার রয়েছেন ৩২৬৬জন। এর মধ্যে সদর উপজেলায় সবচেয়ে বেশি ভোটার ৯৯৮জন। ভোটার সংখ্যার দিক থেকে এরপর গুরুত্বপুর্ণ হলো পার্বতীপুর ও চিরিরবন্দর উপজেলা। পার্বতীপুরে ৫৯০ জন ও চিরিরবন্দরে ৪১৮জন ভোটার রয়েছেন। অন্যান্য উপজেলার মধ্যে ফুলবাড়ীতে ২৬৬জন, বিরলে ২০৩জন, বিরামপুরে ১৯১জন, নবাবগঞ্জে ১৮৯জন, বীরগঞ্জে ৯৭জন, বোচাগঞ্জে ৯৪জন,  হাকিমপুরে ৭৩জন, খানসামায় ৬৭ জন, কাহারোলে ৪৪জন এবং ঘোড়াঘাটে ৩৬জন ভোটার রয়েছেন।  ভোটারদের ভোট পাওয়ার জন্য প্রাার্থীরা ছুটোছুটি করছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য