গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ পৌর সভার বেহাল দশা পৌর বাসী নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত যেন দেখার কেউ নাই । পুরো পৌর শহরের সড়ক গুলি কাদা, পানি ও ভাংগা চুড়া অবস্থায় যানচলাচলের অন- উপযোগী হয়ে পরেছে । পৌর শহরের পানি নিঃস্কাশনের জন্য ড্রেন গুলি মেরামতের জন্য প্রতিবছর লক্ষ্য লক্ষ্য টাকা বাজেট করা হলেও কর্তৃ পক্ষ নাম মাত্র নিম্নমানের কাজ করায় ড্রেনগুলি অল্প দিনেই ভেঙ্গে তা ভরাট সহ ময়লা আর্বজনা অপসরন না করায় ড্রেন গুলিতে পচাঁ পানির র্দুগন্ধে মানুষের নানা প্রকার রোগবালাই দেখা দিয়েছে। সেই সাথে পৌর শহরের অধিকাংশ সড়ক গুলি কাদা ময়লা যুক্ত পানি জমে থাকায় নগর বাসী সহ সর্ব সাধারনের চরম র্দুভোগ পোহাতে হচ্ছে। এমন কি একটু বৃষ্টি হলেই পশ্চিম চৌমাথা থেকে বাজার রাস্তার সততা ক্লিনিক এর সামনে থেকে বালিকা বিদ্যালয়ের গেট পর্যন্ত সড়কটি প্রায় হাটু পানিতে তলিয়ে যায়। কাঁদা ও ময়লা পনিতে তলিয়ে াকা সড়কটি পার হয়ে যাওয়া পানি নিঃস্কাশনের ড্রেন ভেঙ্গে যাওয়ায় সেখানে প্রতিনিয়ত ঘটছে র্দুঘটনা । ড্রেন গুলি মেরামত সহ নিয়মিত পরিস্কার না করায় পানি নিঃস্কাশনে বাধা গ্রস্থ্য হয়ে ানার সামনে গোবিন্দগঞ্জ-ঘোড়াঘাট সড়কের প্রায় দুই’শ গজ জলাবদ্ধতা হয়ে জন সাধারনে চলাচলের দারুন ভাবে বিঘিœত হচ্ছে। সেই সাথে রাস্তার পার্শ্বে যেখানে সেখানে ময়লা আর্বজনার স্তুপ দিনের পর দিন পরে থাকা স্তুপ পঁচে র্দুগন্ধ বেড়িয়ে জন স্বাস্থ্যের মারাত্বক হুমকীর শ্বিকার হচ্ছে । এদিকে পৌর শহরের সড়কে উপর দিয়ে লাইটিং ব্যবস্থা একে বারেই বেহাল অবস্থা । অধিকাংশ লাইট বিকল হয়েছে। মাসের পর মাস লাইট গুলি বন্ধ থাকায় শহরের অধিকাংশ স্থানে সন্ধ্যার পর থেকেই অন্ধকারে র্নিমিজ্জিত হয়। অপর দিকে জলাব্ধ ড্রেন ও ময়লা আর্বজনার স্তুপ থেকে মশা মাছি জন্ম নেওয়ায় পৌর শহরের বাসা বাড়ীতে ব্যাপক হারে মশা-মাছির অত্যাচারে মানুষ অতিষ্ট । মশা মাছি দমনে নাই কোন পদক্ষেপ । পৌর কর্র্তৃ পক্ষের নাই কোন নজর দারী যেন মনে হয় নাকে তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য