হিলি ট্রেন ট্রাজেডি দিবস আজ

হিলি ট্রেন ট্রাজেডি দিবস আজ

দিনাজপুর

বাংলাহিলি রেলওয়ে একতা ক্লাবের কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী ও হিলি স্টেশন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৫ সালের ১৩ জানুয়ারি শুক্রবার রাত সোয়া ৯টায় রেল ক্রসিংয়ের উদ্দেশে স্টেশনের ১ নম্বর লাইনে দাঁড়িয়েছিল গোয়ালন্দ থেকে পার্বতীপুরগামী ৫১১ নম্বর লোকাল ট্রেন। এর কিছুক্ষণ পর সৈয়দপুর থেকে খুলনাগামী ৭৪৮ নম্বর আন্তনগর সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনটি একই লাইনে ঢুকে পড়ে। এ সময় ঘটে যায় ভয়াবহ মুখোমুখি সংঘর্ষ। এতে বিকট শব্দে গোয়ালন্দ লোকাল ট্রেনের ইঞ্জিনসহ দুটি বগি দুমড়েমুচড়ে আন্তনগর ট্রেনের ওপর উঠে যায়।

এতে করে লোকাল ট্রেনটির ইঞ্জিনসহ তিনটি বগি দুমড়ে মুচড়ে যায়। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, স্থানীয় রেলওয়ে একতা ক্লাবের সদস্যসহ স্থানীয়রা দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতদের উদ্ধার করেন।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, ভয়াবহ এই ট্রেন দুর্ঘটনায় দুটি ট্রেনের অর্ধশতাধিক যাত্রী নিহত হয়। আহত হয় দুই শতাধিক যাত্রী। নিহতদের অনেকের দেহ ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে থাকে। পরে স্থানীয় মানুষ, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের লোকজনের সহায়তায় মরদেহ উদ্ধারসহ আহতদের দ্রুত উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠায়। সেসময় সরকারিভাবে নিহতের সংখ্যা ২৭ জন ঘোষণা করা হয়। আর আহতের সংখ্যা বলা হয় শতাধিক।

দুর্ঘটনার পরদিন ১৪ জানুয়ারি দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। তিনি সেসময় ঘোষণা দিয়েছিলেন নিহত ও আহতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। গঠন করা হবে তদন্ত কমিটি। কিন্তু দুর্ঘটনার ২৭ বছরেও আহত ও নিহতদের অনেক পরিবার সেই ক্ষতিপূরণের টাকা পায়নি। সেই সঙ্গে আজও তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন প্রকাশ হয়নি।

হিলি ট্রেন ট্রাজেডি দিবস আজ

বৃহস্পতিবার বিকেলে স্থানীয় রেলওয়ে একতা ক্লাবের উদ্যোগে নিহতদের স্মরনে দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন,হাকিমপুর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পারুল নাহার বেগম, উপজেলা বিএনপি সভাপতি ফেরদৌস রহমান,প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি জাহিদুল ইসলাম,সাবেক সাধারণ সমম্পাদক আনোয়ার হোসেন বুলু,রেলওয়ে একতা ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আরমান প্রধান ও আনোয়ার হোসেনসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভা শেষে নিহতদের স্মরনে দোয়া করা হয়।

উল্লেখ্য, ১৯৯৫ সালের ১৩ জানুয়ারি শুক্রবার রাত সোয়া ৯ টায় রেল ক্রসিংয়ের উদ্দেশে স্টেশনের ১ নম্বর লাইনে দাঁড়িয়েছিল গোয়ালন্দ থেকে পার্বতীপুরগামী ৫১১ নম্বর লোকাল ট্রেন। তবে সে সময়ের দায়িত্বরত স্টেশন মাস্টার ও পয়েন্টসম্যানের অবহেলার কারণে একই লাইনে ঢুকে পড়ে সৈয়দপুর থেকে ছেড়ে আসা খুলনাগামী ৭৪৮ নম্বর আন্তনগর সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনটি। এতে দুইটি ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২৭ জন যাত্রী নিহত হন।