রাজপথে আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে: টুকু

রাজপথে আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে: টুকু

রংপুর

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেছেন, বিনা অপরাধে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাবন্দি করে রাখা হয়েছে। তাকে সঠিকভাবে চিকিৎসাও করাতে দিচ্ছে না এই অবৈধ সরকার। তাই নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলছি আপনারা প্রস্তুুত হোন, আন্দোলনের ডাক আসলেই আপনাদেরকে রাজপথে নামতে হবে। কারণ রাজপথই হচ্ছে একমাত্র সামাধানের পথ এই রাজপথে আন্দোলনের মাধ্যমে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে।

মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) বিকেলে নগরীর গ্র্যান্ড হোটেল মোড় এলাকায় দলের চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং সুচিকিৎসার দাবিতে রংপুর বিভাগীয় বিএনপির সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপি নেতা টুকু আরো বলেন, একটি সাজানো মামলায় বিএনপি নেত্রীকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তাকে বর্তমানে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে। তার চিকিৎসাও করাতে দিচ্ছে না এই ভোটার বিহীন সরকার। বর্তমানে আমাদের নেত্রী নানা ধরণের রোগে আক্রান্ত। তাকে উন্নত চিকিৎসা দেয়া প্রয়োজন। দল ও তার পরিবারের পক্ষ থেকে বারবার বিষয়টি জানানো হলেও তাকে বিদেশে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। একারণে তিনি ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে ধাবিত হচ্ছেন।

রংপুর মহানগর বিএনপির সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) সামসুজ্জামান সামুর সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখেন দলের কেন্দ্রীয় কমিটির রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক উপমন্ত্রী অধ্যক্ষ আসাদুল হাবীব দুলু, বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাকেন রংপুর বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল খালেক, যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি রহুল আমিন আকিল, কেন্দ্রীয় যুবদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক ও রংপুর জেলা যুবদল সভাপতি নাজমুল আলম নাজু, দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র ও বিভাগীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম। বক্তব্য রাখেন রংপুর জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিজু, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রইচ আহমেদ, নীলফামারী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আলমগীর হোসেন, সৈয়দপুর রাজনৈনিক জেলা বিএনপির সদস্য সচিব শাহিন আখতার, গাইবান্ধা জেলা বিএনপির সভাপতি ডা. মাইনুল সাদিক, কুড়িগ্রাম জেলা বিএনপির সাধারণ সাইফুল ইসলাম রানা, মহানগর যুবদলের সভাপতি মাহফুজ উন নবী ডন, সাধারণ সম্পাদক লিটন পারভেজ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতিকুল ইসলাম লেলিন জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সামসুল হক ঝন্টু,, ওলামা দল কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ও রংপুর জেলা সভাপতি ইনামুল হক মাজেদী, মহানগর ছাত্রদল সভাপতি নুর হাসান সুমন, মহানগর কৃষক দল আহ্বায়ক শাহ নেওয়াজ রহমান লাবু, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মনিরুজ্জামান হিজবুল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক মোস্তাফিজার রহমান বিপু, সদস্য সচিব আখতারুজ্জামান তিতু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মোকছেনুল আরেফীন রুবেল, জেলা ওলামা দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মমিন জিহাদী প্রমুখ।

এতে রংপুর জেলা ও মহানগর বিএনপিসহ বিভাগের নয় জেলার বিভিন্ন উপজেলা-ইউনিয়ন বিএনপি এবং অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা খন্ড খন্ড মিছিল সহকারে এ সমাবেশে যোগ দেন। সমাবেশ ঘিরে রংপুর বিএনপির নেতাকর্মীদের মাঝে আনন্দ- উচ্ছ্বাস লক্ষ্য করা গেছে।

এর আগে মঙ্গলবার দুপুর থেকে রংপুর জেলা যুবদলের সভাপতি নাজমুল আলম নাজুর নেতৃত্বে জেলা মহানগর যুবদলের সভাপতি মাহফুজ উন নবী ডন ও সাধারণ সম্পাদক লিটন পারভেজের নেতৃত্বে মহানগর যুবদল, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি নুর হাসান সুমন ও সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া জিমের নেতৃত্বে শ্রমিক দলের সভাপতি জসিম উদ্দিনের নেতৃত্বে শ্রমিক দল এবং মহানগর কৃষক দলের আহ্বায়ক শাহ নেওয়াজ লাবুর নেতৃত্বে মহানগর কৃষক দলের নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে সম্মেলন স্থলে উপস্থিত হন। এছাড়াও বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা বিএনপি এবং অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা পৃথক পৃথক ভাবে মিছিল সহকারে যোগ দেন।

এসময় নগরী জুড়ে ব্যাপক যানজট সৃষ্টি হয়। নগরী জুড়ে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে পুলিশ। মোড়ে মোড়ে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশী করা হয়েছে। কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই রংপুরে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ শেষ হয়।