তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ঘরোয়া স্ক্রাব

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ঘরোয়া স্ক্রাব

সাজগোজ টিপস

তেল চিটচিটে ত্বক নিয়ে বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়। এ ধরনের ত্বকের যত্ন নেওয়া সহজ কাজ নয়। আবার তৈলাক্ত ত্বকের জন্য কোনো প্রসাধনী বাছাই করাটাও বেশ কঠিন।

তবে ঘরোয়া কিছু উপাদান ব্যবহারেই তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নেওয়া যায়। ঘরেই মিলবে এমন সব উপকরণ দিয়েই বানিয়ে ফেলতে পারেন তৈলাক্ত ত্বকের জন্য স্ক্রাব।

তাই আজ জানুন, আপনার ত্বকের তৈলাক্তভাব দূর করতে যেভাবে সহজেই বানাবেন স্ক্রাব—

১. শসার স্ক্রাব
বিভিন্ন রূপচর্চায় শসা অনেক পরিচিত একটি উপাদান। আর আপনার ত্বকের তৈলাক্তভাব দূর করতে সবচেয়ে সহজ স্ক্রাব হচ্ছে এটি। আর নিয়মিত শসার স্ক্রাব ব্যবহার করে দূর করতে পারেন আপনার ত্বকের তৈলাক্তভাব ও ত্বক। এটি আপনার ত্বককেও করবে পরিষ্কার।

আর এটি করতে অর্ধেক পরিমাণ শসা নিয়ে তা ভালো করে থেতলিয়ে নিন। এর পর মুখে লাগিয়ে ভালো করে ম্যাসাজ করুন এবং ১০ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ব্যাস, এতেই পাবেন উপকার।

২. কফির স্ক্রাব
ত্বকের যত্নে কফির ব্যবহার হয়ে থাকে অনেক। বিভিন্ন পণ্যের মূল উপাদান হিসেবেও ব্যবহার করা হয়ে থাকে এটি। এতে থাকা ক্যাফেইন ত্বককে জাগিয়ে তুলতে এবং প্রাকৃতিকভাবে উজ্জ্বল করতে অনেক কার্যকরী।

এর জন্য এক চামচ কফি নিয়ে এর সঙ্গে এক চামচ টকদই ভালো করে মিশিয়ে নিন। এর পর এটি ত্বকে কিছুক্ষণ ঘষে ৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। এতেই দূর হবে আপনার ত্বকের তৈলাক্তভাব।

৩. গ্রিন টির স্ক্রাব
গ্রিন টি আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী ছাড়াও এটি আমাদের ত্বকের জন্যও অনেক উপকারী। আর এটি দিয়ে বানানো স্ক্রাব আপনার ত্বকের তৈলাক্তভাব দূর করতে অনেক কার্যকরী।

এ স্ক্রবটি তৈরিতে এক কাপ গরম পানিতে দুটি গ্রিন টি ব্যগ ভিজিয়ে রাখুন যতক্ষণ না সেটি ঠাণ্ডা হয়ে যায়। পরে দুই চামচ গ্রিন টি ডিকোশন নিয়ে তার সঙ্গে চিনি ও লেবুর রস মেশান। এর পর সেটি ৩-৪ মিনিট ত্বকে ভালো করে স্ক্রব করুন। প্রথমে হালকা গরম পানি এবং পরে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। তা হলেই আপানি দূর করতে পারবেন ত্বকের তৈলাক্তভাব।

৪. চালের স্ক্রাব
ত্বকের ছিদ্রে থাকা মৃত কোষকে দূর করতে এবং তৈলাক্তভাব কমাতে পারে চালের স্ক্রাব। এটি বানাতে চালের গুড়া, সামান্য পরিমাণে বেকিং সোডা, এক চামচ মধু একসঙ্গে মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর ২-৩ মিনিট মুখে ভালোকরে স্ক্রাব করে নিয়ে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। এটি সপ্তাহে এক-দুবার ব্যবহার করলেই পাবেন উপকার।

৫. কমলার খোসা
কমলার খোসায় থাকা যৌগগুলো ত্বকের তৈলাক্তভাব দূর করার পাশপাশি ত্বককে ও ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করে। তাই এটি দিয়ে স্ক্রাব বানিয়ে করে ফেলতে পারেন ত্বকের খুব ভালো যত্ন।

এর জন্য কমলার খোসা শুকিয়ে নিয়ে তা গুঁড়ো করে নিতে হবে। এই গুঁড়োর এ চামচ নিয়ে তার সঙ্গে সমান্য হলুদের গুঁড়ো মিশিয়ে নিয়ে কিছু পরিমাণে মধু দিয়ে পেস্ট তৈরি করে সেটি মুখে ৩-৪ মিনিট স্ক্রাব করুন। তার পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলেই পাবেন তৈলাক্তহীন উজ্জ্বল ত্বক।

৬. পেঁপের স্ক্রাব
তৈলাক্ত ত্বকের জন্য পেঁপে যেন একেবারে স্বর্গীয় একটি উপাদান। কারণ এতে থাকা এনজাইমগুলো ত্বককে এক্সফোলিয়েট করে এবং ত্বককে ক্লিনিং করে। আর এটির ব্যবহারও অনেক সহজ এবং এটি আপনি মুখ ছাড়াও হাতে ও ঘাড়ে ব্যবহার করতে পারবেন।

এর জন্য শুধু পাকা পেঁপে গলিয়ে নিয়ে তাতে কয়েক ফোটা লেবুর রস মিশিয়ে নিন। এর পর সেটি ত্বকে ও ঘাড়ে লাগিয়ে কিছুক্ষন ম্যাসাজ করুন। পরে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলেই পাবেন তেলহীন ক্লিন ত্বক।

তবে মনে রাখবেন, এসব উপাদানের কোনোটিতে যদি আপনার অ্যালার্জি থাকে তা হলে সেটি ব্যবহার করবেন না। বিকল্প স্ক্রাবটি বেছে নেবেন।