চাটমোহরে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের উচ্চ মূল্য

পাবনার চাটমোহরে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের উচ্চ মূল্য

রাজশাহী

পাবনার চাটমোহরে বেড়েই চলেছে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রীর দাম। বেড়েছে শীতকালীন শাক-সবজীর মূল্য। উচ্চ মূল্যের কারণে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষের জীবনযাত্রা কঠিন হয়ে পড়েছে। সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন তারা। চাটমোহরের হাট বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,পেঁয়াজ,কাঁচা মরিচ, মাংস, ডিম, সয়াবিন তেল, চিনি, আটা, শীতকালীন সবজিসহ অন্যান্য দ্রব্যসামগ্রীর দাম বেড়েছে।

সোমবার বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেল,পেঁয়াজের দাম আরেক দফা বেড়ে প্রতি কেজি ৬৫ টাকা,কাঁচা মরিচ ১৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। কয়েকদিন আগেও প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি ১২০ টাকায় বিক্রি হলেও এখন তা ১৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সোনালী মুরগির দাম ১৮০ টাকা থেকে বেড়ে পৌছেছে ২৯০ টাকায়। কিছু দিন আগে যে দেশী মুরগির দাম ছিল ৩৫০ টাকা এখন তা বেড়ে দাড়িয়েছে ৪০০ টাকায়। এক মাসের ব্যবধানে লেয়ার মুরগির দাম বেড়েছে কেজি প্রতি ২০ টাকা।

বর্তমান খুচরা বাজারে ভাল মানের প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৬৫ টাকা,কাঁচা মরিচ ১৬০ টাকা, শিম ৮০ টাকা, বেগুন ৬০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ২৫ টাকা, মুলা ৩০ টাকা, শাক ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মাস খানেকের ব্যবধানে চিনি, সয়াবিন, রুলার আটা, গমের আটা, মশুরের ডালের দাম বেড়েছে। বর্তমান প্রতি কেজি চিনি ৮০ টাকা, রুলার ময়দা ৪৮ টাকা, গমের আটা ৩৫ টাকা, ভাল মানের মশুরের ডাল ১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি লিটার সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৫০ টাকায়। ডিম বিক্রেতারা জানান, প্রতি হালি মুরগির ডিম ৩৫ টাকায় এবং হাঁসের ডিম ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া মাছ বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে।

ব্যবসায়ীরা জানান,আমদানীর উপর নির্ভর করে দাম কমা আর বাড়ার। এখন আমদানি কম থাকায় বেশী দামে কিনে সেভাবেই বিক্রি করতে হচ্ছে। কিছুদিনের মধ্যেই শাক সবজির দাম কমে যাবে বলে তারা জানান।