পাবনার সুজানগরে স্টেডিয়াম গোচারণ ভূমিতে পরিণত

পাবনার সুজানগরে স্টেডিয়াম গোচারণ ভূমিতে পরিণত

রাজশাহী

পাবনার সুজানগরের একমাত্র স্টেডিয়ামটি গোচারণ ভূমিতে পরিণত হয়েছে। সেই সাথে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে স্টেডিয়ামটি বেহাত হতে চলেছে।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আবদুল হাই জানায়, উপজেলার ক্রীড়াঙ্গকে সমৃদ্ধ করার লক্ষে জাতীয় পার্টি সরকারের আমলে উপজেলার কাছারি পাড়ায় প্রায় ১০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে প্রতিষ্ঠা করা হয় একটি স্টেডিয়াম।

সেই সাথে ফুটবলসহ বিভিন্ন খেলা পরিচালনা এবং ধারাভাষ্য দেওয়ার জন্য স্টেডিয়ামের পাশে নির্মাণ করা হয় একটি অফিস। সে সময় উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার ব্যবস্থাপনায় ঐ স্টেডিয়ামে সারা বছর ফুটবল, ভলিবল এবং হাডুডুসহ বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলা অনুষ্ঠিত হতো।

স্থানীয় পর্যায়ের খেলাধুলার পাশাপাশি আয়োজন করা হতো আন্তঃজেলা খেলাধুলা। দূরদূরান্ত থেকে হাজার হাজার ক্রীড়ামোদী দর্শক এসে ঐ খেলা উপভোগ করতেন। কিন্তু ৯০’র দশকের শেষের দিকে উপজেলা পর্যায়ে ক্রীড়া সংস্থার কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর ঐতিহ্যবাহী ঐ স্টেডিয়ামে খেলাধুলাও বন্ধ হয়ে যায় বলে স্থানীয় আ.লীগ নেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জল হোসেন তোফা জানান।

এক সময়ের কৃতী ফুটবল খেলোয়ার রাজা হাসান বলেন দীর্ঘদিন খেলাধুলা না থাকায় স্টেডিয়ামটি বর্তমানে এলাকার মানুষের গোচারণ ভূমিতে পরিণত হয়েছে।

স্থানীয় লোকজন তাদের ইচ্ছামতো সেখানে গরু-ছাগল চড়ানোর পাশাপাশি কৃষিপণ্য শুকানোর কাজও করে থাকেন। তাছাড়া অনেকে স্টেডিয়ামের জায়গা দখল করে বাড়িঘর নির্মাণ করায় স্টেডিয়ামটি বেহাত হতে চলেছে।

সেই সঙ্গে রক্ষণা-বেক্ষণের অভাবে ঐ অফিসটিও ভেঙ্গে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রওশন আলী বলেন স্টেডিয়ামটি রক্ষণা-বেক্ষণের পাশাপাশি খেলাধুলার উপযোগী করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।