পাকিস্তানে ‘ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি’, বসছে তারার মেলা

পাকিস্তানে ‘ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি’, বসছে তারার মেলা

খেলা

স্পোর্টস: ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট ২০২১-২২ এর সূচি ও স্কোয়াড ঘোষণা করেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হতে যাওয়া এ টুর্নামেন্টের সমাপ্তি ঘটবে ১৩ অক্টোবর। প্রথম ১৮টি লেগ ম্যাচ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল মুলতানে। তবে এখন অনুষ্ঠিত হবে রাওয়ালপিন্ডিতে।

পরের ১৫টি ম্যাচ ৬ অক্টোবর থেকে অনুষ্ঠিত হবে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে। ১২ অক্টোবরের ২টি সেমিফাইনালের পর ফাইনাল আয়োজিত হবে ১৩ অক্টোবর। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ঠিক আগ মুহুর্তে এমন টুর্নামেন্টে পাকিস্তানের স্কোয়াডে যারা আছে, তাদের জন্য প্রস্তুতির দারুণ সুযোগ তৈরি করে দিলো পিসিবি।

প্রত্যেকে অন্তত ১০টি করে ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছে। ফর্ম ও ফিটনেস ধরে রাখার পাশাপাশি ১৫ অক্টোবর থেকে সংযুক্ত আমিরাতে শুরু হতে যাওয়া বিশ্বকাপে সেরা পারফর্ম করাই এখন তাদের উদ্দেশ্য। পিসিবি চেয়ারম্যান রমিজ রাজা বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ স্থগিত হওয়ার পর এখন ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি আমাদের অভিজাত ক্রিকেটারদের প্রস্তুতির সুবর্ণ সুযোগ।

তাদের প্রমাণ করতে হবে তারা বিশ্বকাপ হাতে নেওয়ার জন্য যোগ্য অধিকারী। ভালো ক্রিকেটারদের ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টিতে অংশ নেওয়ার মধ্য দিয়ে এ টুর্নামেন্টের গুরুত্ব ও মর্যাদা আরও বেড়ে গেছে। আগামীর তারকা ক্রিকেটাররাও জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের সাথে খেলে নিজেদের ঝালিয়ে নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে।’

গতবারের চ্যাম্পিয়ন খাইবার পাখতুংখার অধিনায়ক হয়েছেন পাকিস্তানের উইকেটরক্ষক মোহাম্মদ রিজওয়ান এবং রানার্সআপ সাউদার্ন পাঞ্জাবকে নেতৃত্ব দিবেন হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান শোয়েব মাকসুদ। সেন্ট্রাল পাঞ্জাবের অধিনায়ক হয়েছেন জাতীয় দলের অধিনায়ক বাবর আজম এবং বেলুচিস্তানের অধিনায়কত্ব পেয়েছেন ওপেনার ইমাম উল হক। এ ছাড়া সরফরাজ আহমেদ ও শাদাব খান যথাক্রমে সিন্ধ ও নর্দার্নকে নেতৃত্ব দিবেন।

ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি ২০২১-২২ এর সূচি
২৩ সেপ্টেম্বর- বেলুচিস্তান-নর্দার্ন, খাইবার পাখতুংখা- সেন্ট্রাল পাঞ্জাব।
২৪ সেপ্টেম্বর- সিন্ধ- সাউদার্ন পাঞ্জাব, বেলুচিস্তান- সেন্ট্রাল পাঞ্জাব
২৫ সেপ্টেম্বর- খাইবার পাখতুংখা- সাউদার্ন পাঞ্জাব, সিন্ধ-নর্দার্ন।
২৬ সেপ্টেম্বর- বেলুচিস্তান- সাউদার্ন পাঞ্জাব, খাইবার পাখতুংখা- সেন্ট্রাল পাঞ্জাব
২৯ সেপ্টেম্বর- সিন্ধ-বেলুচিস্তান, নর্দার্ন – সাউদার্ন পাঞ্জাব
৩০ সেপ্টেম্বর- নর্দার্ন – সেন্ট্রাল পাঞ্জাব, সিন্ধ- খাইবার পাখতুংখা
১ অক্টোবর- বেলুচিস্তান- সাউদার্ন পাঞ্জাব, নর্দার্ন -সিন্ধ
২ অক্টোবর- বেলুচিস্তান- খাইবার পাখতুংখা, সিন্ধ- সেন্ট্রাল পাঞ্জাব
৩ অক্টোবর- খাইবার পাখতুংখা- নর্দার্ন, সাউদার্ন পাঞ্জাব – সেন্ট্রাল পাঞ্জাব
৬ অক্টোবর- সেন্ট্রাল পাঞ্জাব – সিন্ধ, বেলুচিস্তান – নর্দার্ন
৭ অক্টোবর- সেন্ট্রাল পাঞ্জাব – সাউদার্ন পাঞ্জাব, খাইবার পাখতুংখা- বেলুচিস্তান।
৮ অক্টোবর- সেন্ট্রাল পাঞ্জাব- নর্দার্ন, সাউদার্ন পাঞ্জাব- সিন্ধ
৯ অক্টোবর- সিন্ধ – খাইবার পাখতুংখা, নর্দার্ন – সাউদার্ন পাঞ্জাব
১০ অক্টোবর- খাইবার পাখতুংখা- সাউদার্ন পাঞ্জাব, বেলুচিস্তান – সেন্ট্রাল পাঞ্জাব
১১ অক্টোবর- সিন্ধ- বেলুচিস্তান, খাইবার পাখতুংখা- নর্দার্ন
১২ অক্টোবর- সেমি ফাইনাল- ১ ও ৪ নম্বর দল, ২ ও ৩ নম্বর দল
১৩ অক্টোবর- ফাইনাল

স্কোয়াডঃ
বেলুচিস্তানঃ ইমাম উল হক (অধিনায়ক), বিসমিল্লাহ খান (উইকেটরক্ষক), আবদুল ওয়াহিদ বাঙালজাই, আকবর-উর-রেহমান, আকিফ জাভেদ, আমাদ বাট, আয়াজ তাসাওয়ার, গহর ফাইজ, হারিস সোহেল, জালাত খান, জুনায়েদ খান, কাশিফ ভাট্টি, খুররাম শাহজাদ, মোহাম্মদ ইব্রাহিম সিনিয়র, উমাইদ আসিফ এবং ইয়াসির শাহ।

সেন্ট্রাল পাঞ্জাবঃ বাবর আজম (অধিনায়ক), হাসান আলি, আবদুল্লাহ শফিক, আহমেদ সাফি আবদুল্লাহ, আহমেদ শেহজাদ, এহসান আদিল, ফাহিম আশরাফ, হুসাইন তালাত, কামরান আকমল (উইকেটরক্ষক), মোহাম্মদ হাফিজ, কাসিম আকরাম, সাইফ বদর, শোয়েব মালিক, উসমান কাদির, ওয়াহাব রিয়াজ এবং ওয়াকাস মাকসুদ
খাইবার পাখতুংখাঃ মোহাম্মদ রিজওয়ান (অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক), শাহীন শাহ আফ্রিদি, আদিল আমিন, আরশাদ ইকবাল, আসিফ আফ্রিদি, ফখর জামান, ইফতিখার আহমেদ, ইমরান খান সিনিয়র, ইসরার উল্লাহ, মাজ খান, মোহাম্মদ হারিস, মোহাম্মদ ইমরান খান, মোহাম্মদ ওয়াসিম, মুসাদিক আহমেদ এবং শাহিবজাদা ফারহান।

নর্দার্নঃ শাদাব খান (অধিনায়ক), মোহাম্মদ নওয়াজ, রোহাইল নাজির (উইকেটরক্ষক), আলি ইমরান, আসিফ আলি, হায়দার আলি, হারিস রউফ, ইমাদ ওয়াসিম, মুসা খান, নাসির নেওয়াজ, সালমান ইরশাদ, সোহেল আখতার, সোহেল তানভীর, উমর আমিন, জামান খান এবং জিশান মালিক।

সিন্ধঃ সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক), আনোয়ার আলি, আবরার আহমেদ, আহসান আলি, দানিশ আজিজ, হাসান মহসিন, খুররাম মঞ্জুর, মীর হামজা, মোহাম্মদ হাসনাইন, মুহাম্মদ তাহা, রুমন রইস, সৌদ শাকিল, শান মাসুদ, শাহনেওয়াজ ধানি, শারজিল খান এবং জাহিদ মাহমুদ।

সাউদার্ন পাঞ্জাবঃ শোয়েব মাকসুদ ( অধিনায়ক), জিশান আশরাফ, আমির ইয়ামিন, আজম খান (উইকেটরক্ষক), দিলবার হুসাইন, ফয়সাল আকরাম, হাসান খান, ইমরান রান্ধওয়া, খুশদিল শাহ, মোহাম্মদ ইলিয়াস, নাসিম শাহ, সালমান আলি আঘা, তৈয়ব তাহির, উমের খান, জাইন আব্বাস এবং জিয়া উল হক।