কুড়িগ্রামে সরকারি চাল কালোবাজারে, অবশেষে মামলা

কুড়িগ্রামে সরকারি চাল কালোবাজারে, অবশেষে মামলা

রংপুর

কুড়িগ্রামের উলিপুরে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির ২০বস্তা চাল কালো বাজারে বিক্রির সময় হাতে-নাতে আটক করে পুলিশে দিয়েছে জনতা। এ সময় চাল পরিবহনের অভিযোগে দুই ভ্যান চালকসহ আনোয়ার হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়। গতকাল ১৩ সেপ্টেম্বর সোমবার দুপুরের হলেও দিনভর নানা নাটকীয়তার পরে গভীর রাতে থানায় মামলা দায়ের হয়।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শি সূত্রে জানাযায়,১৩ সেপ্টেম্বর সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে উলিপুর খাদ্য গুদাম থেকে দুটি ভ্যান গাড়িতে ৫০কেজি ওজনের সরকারি সিলযুক্ত ২০বস্তা চাল বের হয়। পরে ভ্যান গাড়ি দুটি শহরের মধ্য বাজারের মেসার্স কাশেম চালকলের মালিক সেকেন্দার আলীর দোকানে নামিয়ে দিতে থাকেন।

এ সময় স্থানীয় লোকজনের সন্দেহ হলে ভ্যান গাড়িসহ চাল আটক করে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে ভ্যান চালক আবদুল কুদ্দস ও শহীদ আলীর কাছে জানতে চান। তাদের ভাষ্য মতে চালগুলো খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ডিলার পুবেল সরদারের। এসব চাল খাদ্য ব্যবসায়ী সেকেন্দার আলীর কাছে বিক্রির করেছেন বলে জানান তারা। খবর পেয়ে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আলাউদ্দিন বসুনিয়া ও ভারপ্রাপ্ত খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা শাহিনুর রহমান ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন।

পুলিশ ২০বস্তা (এক মে.টন) চাল,দোকান ম্যানেজার আনোয়ার হোসেন সহ ভ্যান চালকদের থানায় নিয়ে আসেন। রাতে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আলাউদ্দিন বসুনিয়া বাদী হয়ে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির ডিলার পুবেল সরদার, দোকান মালিক সেকেন্দার আলী ও ম্যানেজার আনোয়ার হোসেনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১৬।

সরকারি চাল কালো বাজারে বিক্রির সময় হাতে নাতে ধরা পড়লেও দিনভর খাদ্য গুদাম কর্মকর্তাদের নানা নাটকীয়তার পর গভীর রাতে মামলা হওয়ায় গুদাম কর্মকর্তাদের ভূমিকা নিয়েও জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, উপজেলা খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা শাহিনুর রহমান উলিপুরে যোগদানের পর থেকে একটি সিন্ডিকেট চক্রের মাধ্যমে অনিয়ম-দুর্নীতি করে সরকারের লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। সাম্প্রতিক সময়ে ধান,চাল সংগ্রহের অনিয়ম করায় উলিপুর খাদ্য গুদামে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি।

তার বিরুদ্ধে একাধিক দুর্নীতির সংবাদ গণমাধ্যমে প্রকাশিত হবার দুটি তদন্ত কমিটি গঠন খাদ্য বিভাগ। তদন্ত হবার তিন সপ্তাহ পার হলেও কোন তদন্ত প্রতিবেদন জমা হয়নি এবং স্ব কর্মস্থলে বহাল তবিয়তে রয়েছেন উপজেলা খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা।

খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির চাল কালো বাজারে বিক্রির সাথে এ কর্মকর্তার ইন্ধন রয়েছে বলে নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যবসায়ী জানান।

এ ব্যাপারে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আলাউদ্দিন বসুনিয়া বলেন, সরকারি চাল আটকের ঘটনায় থানায় এজাহার দেয়া হয়েছে।

উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ কবির মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় দোকান ম্যানেজারকে আটক করা হয়েছে। স্বাক্ষীদের জবানবন্দির জন্য ভ্যান চালকদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য