14_FNS_N_24.05.2014বিএনপির আইনজীবী সমাবেশে বাঁধার নিন্দা জানিয়ে ‘বাড়াবাড়ি’ না করতে সরকারকে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন খালেদা জিয়া। পুলিশের বাঁধা আর ধরপাকড়ের মধ্যে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে আইনজীবীরা জাতীয় প্রেসক্লাবে সমাবেশ স্থানান্তরের পর তাতে যোগ দিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, অতি বেশি বাড়াবাড়ি ভাল নয়।

দুদিন আগে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে নাগরিক সমাবেশে বাঁধার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, কোথাও তারা মিটিং করতে দিতে চায় না, কিসের জন্য? কারণ তারা এত দুর্বল যে তারা মানুষকে ভয় পায়।

তারা শুধু ক্ষমতায় টিকে আছে বিদেশি বন্ধুদের জোরে। র‌্যাবকে দিয়ে মানুষ গুম করাচ্ছে। খুন করাচ্ছে। কিন্তু এই অবস্থা বেশিদিন চলতে পারে না,  সরকারকে সতর্ক করেন খালেদা।

দুদিন আগে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিটিউশন মিলনায়তনে বিএনপি চেয়ারপারসনের নাগরিক সমাবেশ প- করে দেয়ার পর সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে  গতকাল শনিবার আইনজীবী ফোরামের সমাবেশেও বাঁধা দিচ্ছিল পুলিশ।

সকালে ধরপাকড় এবং সুপ্রিম কোটের্র ফটক বন্ধ করে দেয়ার পর সকাল মাড়ে ১০টার দিকে ভাঙা মঞ্চে সমাবেশ শুরু করলেও পরে তা জাতীয় প্রেসক্লাবে নিয়ে আসা হয়। বিএনপি চেয়ারপারসন সোয়া ১২টার দিকে প্রেসক্লাবে উপস্থিত হন। তার আগে সাড়ে ১১টায় সেখানে সমাবেশে বক্তব্য শুরু হয়।
জাতীয়তাবাদি আইনজীবী ফোরামের সভাপতি রফিকুল ইসলাম মিয়ার সভাপতিত্বে এই সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন মওদুদ আহমদ, খন্দকার মাহবুব হোসেন, জয়নুল আবেদীন, মীর মোহাম্মদ নাছিরউদ্দিন, নিতাই রায় চৌধুরী, আহমেদ আজম খান প্রমুখ।

এই সমাবেশের জন্য শুক্রবার রাতেমঞ্চ। ও প্যান্ডেল তৈরি করা হয়েছিল। তবে রাতেই পুলিশমঞ্চ। ভেঙে দেয় এবং প্যান্ডেলের সব চেয়ার-টেবিল সরিয়ে দেয়। সকাল থেকে সুপ্রিম কোটের্র ফটকগুলোতে অবস্থান নিয়ে তল্লাশি চালায় পুলিশ। ঢোকার পথে সাতজন আইনজীবীকে আটক করা হয়েছে বলে বিএনপির আইনজীবী নেতাদের অভিযোগ।

সকালে হাই কোর্ট মাজারের ফটক থেকে এডভোকেট খোরশেদ আলম ও জহিরুল ইসলামসহ কয়েকজনকে পুলিশ ভ্যানে তুলে নেয়া হলে আইনজীবীরা বিক্ষোভ করে। এরপর ফোরামের মহাসচিব ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক মাহবুবউদ্দিন খোকন সাংবাদিকদের বলেন, এরপরও আমরা সমাবেশ করব। ভাঙা মঞ্চের পাশেই সমাবেশের কার্যক্রম শুরু হয় মাহবুবউদ্দিন খোকনের সভাপতিত্বে। প্রথমে বক্তব্য রাখেন এডভোকেট গোলাম মোস্তফা।

অর্ধশত আইনজীবী নিয়ে সমাবেশ শুরু হয়। উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্মমহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, কেন্দ্রীয় নেতা সানাউল্লাহ মিয়া, ইকবাল হোসেন প্রমুখ।

প্রথমে বক্তব্য রাখেন এডভোকেট গোলাম মোস্তফা। পুলিশ সব মাইক খুলে নেয়ায় হ্যান্ডমাইক দিয়ে নেতারা বক্তব্য রাখছিলেন। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিশ্চিত এবং এডভোকেট চন্দন সরকারসহ সব অপহরণ-খুনের বিচার দাবিতে বিএনপি সমর্থিত আইনজীবী সংগঠনটি এই সমাবেশ করছে। গত বৃহস্পতিবার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে গুম-খুনের প্রতিবাদে বিএনপির নাগরিক সমাবেশের অনুমতি দেয়নি পুলিশ। সেখানে বিএনপি নেতারা জড়ো হলেও তাদের বের করে দিয়ে মিলনায়তন বন্ধ করে দিয়েছিল পুলিশ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য