স্বাস্থ্য অধিদফতর

শিগগিরই অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ: স্বাস্থ্য অধিদফতর

জাতীয়

শিগগিরই অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা উদ্ভাবিত টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু হবে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। বুধবার (২৮ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদফতরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘দেশে প্রথম করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয় অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার মাধ্যমে। কিন্তু মাঝে টিকা সরবরাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দ্বিতীয় ডোজের জন্য অনেকেই অপেক্ষায় রয়েছেন। আমরা ইতোমধ্যে জাপান সরকারের কাছ থেকে কিছু পরিমাণ টিকা পেয়েছি এবং খুব দ্রুত দ্বিতীয় ডোজের জন্য অপেক্ষমাণদের টিকা দেওয়া শুরু করবো।’

ডা. নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা আশাবাদী সরকারের বিভিন্ন বহুমুখী পদক্ষেপের কারণে আরও বেশি সংখ্যায় অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা পেয়ে যাবো এবং অবশিষ্ট যারা আছেন তাদের প্রত্যেককেই সে টিকা দিতে সক্ষম হবো।’

দেশে গত ৭ ফেব্রুয়ারি করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়। শুরুতে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা উদ্ভাবিত ও ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে তৈরি কোভিশিল্ড দিয়ে এ কর্মসূচি শুরু হলেও ভারত সরকারের নিষেধাজ্ঞায় পরে এই টিকার সংকট হয় দেশে।

সেই থেকে মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) পর্যন্ত এ টিকার প্রথম ডোজ নিয়ে দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষায় রয়েছেন সাড়ে ১৪ লাখ মানুষ। এখানে উল্লেখ্য, গত ২৪ জুলাই কোভ্যাক্স সুবিধার আওতায় জাপান সরকারের উপহার দেওয়া অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি টিকা দেশে আসে।

বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত নাওকি ইতো এই টিকা পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেনের কাছে হস্তান্তর করেন। এ সময় জাপানের রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘আগামী ১ মাসের মধ্যে আরও প্রায় ২৮ লাখ টিকা জাপান থেকে বাংলাদেশে আসবে।’

জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তোশিমিৎসু মোতেগি ১৫টি দেশের জন্য অ্যাস্ট্রাজেনেকার এক কোটি ১০ লাখ ডোজ টিকা কোভ্যাক্সের আওতায় দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। জাপানের উপহার পাবে এমন দেশের তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশের নাম। তালিকা অনুযায়ী অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২৯ লাখ টিকা পাবে বাংলাদেশ। তারই প্রথম চালান দেশে আসে কয়েক দিন আগে।

দেশে ইতোমধ্যে সিনোফার্ম, ফাইজার এবং মডার্নার টিকাও রোল আউট হয়েছে জানিয়ে অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘এসব টিকা দিতে শুরু করেছি।’ সেই সঙ্গে যাদের সুযোগ রয়েছে তাদের অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ‘তারা যেন অন্যদের টিকা নিবন্ধন করতে সহযোগিতা করেন। তবে টিকাকেন্দ্রে যেতে হবে কেন্দ্র থেকে এসএমএস পাওয়ার পর।’ বিধিনিষেধের প্রতি অনুগত থাকা, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য দেশের সব নাগরিকের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য