ফুলছড়ি রকির হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে যুবলীগের মানববন্ধন

ফুলছড়ি রকির হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে যুবলীগের মানববন্ধন

রংপুর

গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান রকির হত্যাকা-ের প্রতিবাদ ও চারদিনেও কোন আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়েছে ফুলছড়ি উপজেলাবাসি। প্রধান অভিযুক্ত কাঞ্চনসহ তার সহযোগীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বৃহস্পতিবার ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ইউনিয়ন যুবলীগের উদ্যোগে গাইবান্ধা-বালাসীঘাট সড়কের একাডেমিতে এক মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে।

কঞ্চিপাড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম রুবেলের সভাপতিত্বে মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন জেলা যুবলীগের সভাপতি সরদার মো. শাহীদ হাসান লোটন, ফুলছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জিএম সেলিম পারভেজ, ফুলছড়ি উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ এটিএম রাশেদুজ্জামান রোকন, সহ-সভাপতি শফিকুল ইসলাম সাজু, ফুলছড়ি উজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ স¤পাদক আজগর আলী মাস্টার ও শহিদুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রকিবুল দৌলা রাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিব সরকার, কঞ্চিপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান লিটন মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কুঠির শিল্পবিষয়ক সম্পাদক মেহেদী হাসান বাবু প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ছাত্রলীগ নেতা আশিকুর রহমান রকি হত্যাকান্ডের ৪ দিন পেরিয়ে গেলেও হত্যাকারী অভিযুক্ত প্রধান আসামি কাঞ্চনসহ তার সহযোগীরা এখনও ধরাছোঁয়ার বাহিরে রয়েছে। তারা অবিলম্বে প্রধান আসামি কাঞ্চন এবং তার সহযোগী ইমরান ও নাহিদসহ অন্যান্যদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

উল্লেখ্য, আশিকুর রহমান রকি ১১ জুলাই রোববার রাতে শহরের পুরাতন বাজার এলাকার ফার্মেসী থেকে ওষুধ কিনে সোহেল ও প্লাবনকে সঙ্গে নিয়ে মোটরসাইকেলে নিজ বাড়ি ফুলছড়ির কঞ্চিপাড়ার দিকে যাচ্ছিল। এসময় পথিমধ্যে শহরের পূর্বপাড়ার হালিম বিড়ি ফ্যাক্টরী সংলগ্ন রাস্তার মোড়ে পৌঁছলে পূর্ব থেকেই ওঁৎ পেতে থাকা পূর্বপাড়ার নবাব আলীর ছেলে কাঞ্চন ও তার সহযোগীরা রকির উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে ধারালো ছুরি দিয়ে তাকে কুপিয়ে হত্যা করে।

এব্যাপারে নিহত রকির বড় ভাই আতিকুর রহমান সরকার ১২ জুলাই সোমবার বাদি হয়ে গাইবান্ধা সদর থানায় কাঞ্চনকে প্রধান আসামি এবং ৩ জনের নামসহ আরও অজ্ঞাত ৭/৮ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য