থাইল্যান্ডে চীনা ভ্যাকসিন নিয়েও করোনায় আক্রান্ত ৬১৮ স্বাস্থ্যকর্মী

থাইল্যান্ডে চীনা ভ্যাকসিন নিয়েও করোনায় আক্রান্ত ৬১৮ স্বাস্থ্যকর্মী

আন্তর্জাতিক

থাইল্যান্ডে চীনের তৈরি সিনোভ্যাক টিকার দুই ডোজ নেয়ার পরও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ৬১৮ জন স্বাস্থ্যকর্মী। আক্রান্তদের মধ্যে একজন নার্সের মৃত্যু হয়েছে, গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় রয়েছেন আরও একজন। ১১ জুলাই রবিবার থাই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম রয়টার্স।

২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত ছয় লাখ ৭৭ হাজার ৩৪৮ জন স্বাস্থ্যকর্মীকে সিনোভ্যাকের করোনা টিকার উভয় ডোজ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। রবিবার এক সংবাদ সম্মেলনে থাইল্যান্ডের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সপন আয়ামসিরিথন এ তথ্য জানান।

সপন আয়ামসিরিথন জানান, স্বাস্থ্যকর্মীদের কোভিডের ঝুঁকি ন্যুনতম পর্যায়ে নিয়ে আসতে তাদের সবাইকে ভ্যাকসিনের তৃতীয় বা বুস্টার ডোজ দেওয়া হবে। সম্প্রতি এ সংক্রান্ত প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এক্ষেত্রে সিনোভ্যাক ব্যবহার করা হবে না। অ্যাস্ট্রাজেনেকা কিংবা অন্য কোনও আরএনএ শ্রেণির ভ্যাকসিনই অগ্রাধিকার তালিকায় থাকবে।

চীনা ভ্যাকসিন নেওয়ার পরও করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা এটিই প্রথম নয়। ইন্দোনেশিয়াতেও এমন ঘটনা ঘটেছে। দেশটিতে সিনোভ্যাকের উভয় ডোজ নেয়ার পরও কমপক্ষে ২০ জন চিকিৎসক এবং ১০ জন নার্স কোভিডে ভুগে মারা গেছেন।

ইন্দোনেশিয়ায় অ্যাস্ট্রাজেনেকা, সিনোফার্ম উভয় কোম্পানির ভ্যাকসিন থাকলেও সিংহভাগ সরবরাহ এসেছে সিনোভ্যাক থেকে। ফলে প্রশ্ন দেখা দিলেও সিনোভ্যাক দিয়ে টিকা কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়া ছাড়া তেমন কোনো বিকল্প তাদের হাতে নেই। দেশটিতে চিকিৎসকরা এ নিয়ে খোলাখুলি কথা বলতে চান না, কিন্তু তারা স্বীকার করেন তারা নিরাপদ বোধ করছেন না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ফুসফুস বিশেষজ্ঞ বিবিসিকে জানান, সিনোভ্যাকের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার এক মাস পর তিনি অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করে দেখেন কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের মতো কোনও সুরক্ষাই দেহে তৈরি হয়নি। আরও এক মাস পর দ্বিতীয় দফায় পরীক্ষা করেও তিনি একই ফল পান। তবে ওই চিকিৎসক বলেন, তার কিছু সহকর্মী ভালো ফল পেয়েছেন, কিন্তু তার শরীরে সিনোভ্যাক টিকা কোনও কাজ করেনি। সূত্র: রয়টার্স, বিবিসি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য