মহামারিতেও এফ নাইন সিনেমার আয় ৫০০ মিলিয়ন ডলার

মহামারিতেও এফ নাইন সিনেমার আয় ৫০০ মিলিয়ন ডলার

বিনোদন

করোনা বাঁধা অতিক্রম করে মুক্তি পেয়েছে ইউনিভার্সালের অ্যাকশন-প্যাকড ‘ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস’ ফ্র্যাঞ্চাইজির নবম কিস্তি। এরইমধ্যে বেশ সাড়া ফেলেছে ‘এফ নাইন’।

বিশ্বব্যাপী টিকিট বিক্রি করে ৫০০ মিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে এর আয়। মহামারী পরবর্তী সময়ে দুনিয়ার সব থেকে আলোচিত বক্স অফিস কালেকশনের তালিকার তাই শীর্ষ নাম এখন ‘ফাস্ট এ- ফিউরিয়াস নাইন’।

‘এফ নাইন’ ২০১৯ সালের পর একমাত্র সিনেমা, যা বক্স অফিসে ৫০০ মিলিয়ন কালেকশনের এই রেকর্ড গড়েছে। এ সিনেমার পরে রয়েছে এপ্রিল মুক্তিপ্রাপ্ত ওয়ার্নার ব্র্রসের ‘গডজিলা ভার্সেস কং’।

বর্তমানে সিনেমাটির মোট আয় ৪৪৬ মিলিয়ন ডলার। করোনার আক্রমণ এখনো বিশ্বজুড়ে অব্যাহত৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পৃথিবীর অনেক দেশে এখনো প্রেক্ষাগৃহে পুরোপুরিভাবে সচল নয়।

তবুও ‘এফ নাইন’ ৫০০ কোটি ড়লার আয় করর তাক লাগিয়ে দিলো। এ সিনেমার অসাধারণ সাফল্য আশাবাদী করে তুলেছে হলিউডের পরিচালক-প্রযোজকদের।

অনেকেই বিশ্বাস করতে শুরু করছেন ভালো সিনেমা হলে এই সময়েও দর্শক প্রেক্ষাগৃহে ফিরিয়ে আনা সম্ভব। নিজ দেশের বাইরে আন্তর্জাতিক বক্স অফিস থেকে ‘এফ নাইন’র সংগ্রহ ৩৭৪ মিলিয়ন ডলার।

বাইরের দেশগুলোর মধ্যে সিনেমাটির সবথেকে বেশি ব্যবসা করেছে চিনে। যদিও সিনেমাটির প্রচারণায় গিয়ে জন সিনা, তাইওয়ান নিয়ে মন্তব্য করে চীনা দর্শকের কাছে বেশ সমালোচিত হয়েছিলেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য