ইরাক ও সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের ওপর ধারাবাহিক হামলা

ইরাক ও সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের ওপর ধারাবাহিক হামলা

আন্তর্জাতিক

ইরাক ও সিরিয়ায় অবস্থানরত যুক্তরাষ্ট্রের সেনা ও অন্যান্য অবস্থানের ওপর ২৪ ঘণ্টায় তিনটি রকেট ও ড্রোন হামলা হয়েছে।

এরমধ্যে ইরাকের একটি বিমান ঘাঁটিতে অবস্থানরত মার্কিন সেনাদের লক্ষ্য করে অন্তত ১৪টি রকেট ছোড়া হয়েছে আর তাতে দুই আমেরিকান সেনা আহত হয়েছেন বলে বুধবার যুক্তরাষ্ট্র ও ইরাকি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

এসব হামলা দায় কেউ স্বীকার না করলেও এগুলো ইরান সমর্থিত মিলিশিয়াদের পরিকল্পনার অংশ বলে বিশ্বাস পশ্চিমা বিশ্লেষকদের।

গত মাসে ইরাক-সিরিয়া সীমান্তে ইরানের মিত্র মিলিশিয়া গোষ্ঠীগুলোর অবস্থানে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় তাদের চার জন্য সদস্য নিহত হয়েছিল। ওই হামলার পর গোষ্ঠীগুলো প্রতিশোধ নেওয়ার হুমকি দিয়েছিল।

ইরানে মোতায়েন আন্তর্জাতিক জোট বাহিনীর মুখপাত্র যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর কর্নেল ওয়েইন মারটো জানিয়েছেন, পশ্চিম ইরাকের আইন আল আসাদ বিমান ঘাঁটিতে রকেট হামলায় দুই জন সামান্য আহত হয়েছেন।

রকেটগুলো ঘাঁটিতে ও এর আশপাশে আঘাত হেনেছে বলে জানিয়েছেন তিনি। এর আগে এ হামলায় তিন জন আহত হওয়ার কথা বলেছিলেন তিনি।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আহত ওই দুই জন মার্কিন বাহিনীর সদস্য।

বৃহস্পতিবার ভোররাতে বাগদাদের গ্রিন জোনের ভেতরে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস লক্ষ্য করে দুটি রকেট ছোড়া হয় বলে ইরাকি নিরাপত্তা সূত্রগুলো রয়টার্সকে জানিয়েছে।

ওই সূত্রদের অন্যতম ইরাকি এক নিরাপত্তা কর্মকর্তা জানিয়েছেন, দূতাবাসের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরোধ পদ্ধতি একটি রকেটের গতিপথ ঘুরিয়ে দেয় ও অপরটি কাছেই পড়ে। এই কর্মকর্তার দপ্তর গ্রিন জোনের ভেতরেই।

রকেট হামলার সময় গ্রিন জোনের ভেতরে দূতাবাসটিতে সাইরেন বাজছিল বলে জানিয়েছেন ওই কর্মকর্তা। এই গ্রিন জোনেই ইরাকে সরকারি দপ্তরগুলো ও বিদেশি মিশনগুলোর অবস্থান।

সিরিয়া থেকে যু্ক্তরাষ্ট্রের সমর্থিত কুর্দি বাহিনী সিরিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ফোসর্ জানিয়েছে, দেশটির পূর্বাঞ্চলে ইরাক সীমান্তের নিকটবর্তী আল ওমর তেলক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনীকে লক্ষ্য করে চালানো ড্রোন হামলায় কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। এই তেলক্ষেত্রটিতেই ২৮ জুন যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনীর ওপর রকেট হামলা চালানো হয়েছিল, তখনও তারা অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছিল।

পেন্টাগন বলেছে, সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলে একটি ড্রোন গুলি করে নামানো হয়েছে আর এতে যুক্তরাষ্ট্রের কোনো সেনা আহত হয়নি এবং কোনো ক্ষয়ক্ষতিও হয়নি।

ইরাকি সেনাবাহিনীর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তাদের দেশের যেসব ঘাঁটিতে মার্কিন সৈন্যরা আছেন সেখানে যে হারে রকেট ও বিস্ফোরকবাহী ড্রোন হামলা চালানো হচ্ছে তা নজিরবিহীন।

ইরাকের সামরিক বাহিনীর সূত্রগুলো রয়টার্সকে জানিয়েছে, বুধবারের হামলায় ব্যবহৃত রকেট লঞ্চারটি একটি ট্রাকের ওপর বসানো ছিল আর সেটিকে নিকটবর্তী খামারে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার ইরাকের উত্তরাঞ্চলে এলবিল বিমানবন্দরে যুক্তরাষ্ট্রের ঘাঁটি লক্ষ্য করে আরেকটি ড্রোন হামলা চালানো হয়েছিল বলে কুর্দি নিরাপত্তা সূত্রগুলো রয়টার্সকে জানিয়েছে।

সোমবার আইন আল আসাদেও তিনটি রকেট হামলা চালানো হয়েছিল। তবে এসব হামলায় কেউ হতাহত হয়নি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য