রংপুরে করোনার উপসর্গ বৃদ্ধি ফার্মেসিগুলো প্যারাসিটামল সংকটে

রংপুরে করোনার উপসর্গ বৃদ্ধি ফার্মেসিগুলো প্যারাসিটামল সংকটে

রংপুর

দুই সপ্তাহ ধরে রংপুর অঞ্চলে হঠাৎ বাড়তে শুরু হয়েছে জ্বর-সর্দি, কাশি-হাঁচি ও ব্যথায় আক্রান্ত রোগী। বেশির ভাগ আক্রান্তের সঙ্গে মিলে যাচ্ছে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়ান্টের উপসর্গ।

এ নিয়ে উদ্বিগ্ন না হয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ স্বাস্থ্য বিভাগের। চিকিৎসকেরা বলছেন, শুধু করোনাভাইরাস নয়, ঋতু পরিবর্তনেরও প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। এ কারণে সবখানেই এখন জ্বর-সর্দিতে আক্রান্ত রোগী বাড়ছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে বাধ্যতামূলক মাস্ক ব্যবহার ও স্বাস্থ্য বিভাগের নির্দেশনা মেনে চলতে হবে বলে জানান তারা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রংপুরসহ বিভাগের প্রায় প্রতিটি জেলা-উপজেলার ফার্মেসিগুলোয় সহজে মিলছে না জ্বর-সর্দি, কাশি-হাঁচির ওষুধ। চাহিদা বাড়ায় অনেক ফার্মেসিতে নাপা, নাপা এক্সটেন্ড, জি-ম্যাক্স, এইচ, এইচ প্লাসসহ প্যারাসিটামল জাতীয় ট্যাবলেটের সংকট রয়েছে। তবে চাহিদার অজুহাতে দামও বাড়িয়েছেন ফার্মেসির মালিকরা। বিশেষ করে পাড়া-মহল্লার ফার্মেসিগুলোতে বেশি দামে প্যারাসিটামল বিক্রি হচ্ছে।

অনেক জায়গায় ফার্মেসিতে ওষুধ না পেয়ে রোগী ও তাদের স্বজনরা হতাশ হয়ে বাড়ি ফিরছেন। আবার কোথাও কৃত্রিম সংকট তৈরির অভিযোগ মিলছে ফার্মেসি-মালিকদের বিরুদ্ধে।

ক্রেতাদের অভিযোগ, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় লাভের আশায় ফার্মেসি-মালিকেরা এই কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে সাধারণ মানুষকে দুর্ভোগে ফেলেছেন।

রংপুর নগরীর কৈশাল রঞ্জন স্কুল মোড়ের নিউ ফার্মেসিয়ার স্বত্বাধিকারী হামিদুল ইসলাম হামিদ বলেন, বর্তমানে জ্বর, সর্দি, কাশির প্রকোপ ব্যাপকভাবে বেড়ে গেছে। চাহিদার তুলনায় কোম্পানিগুলো আমাদের ওষুধ সরবরাহ করতে পারছে না। বিশেষ করে নাপা ট্যাবলেট, নাপা সিরাপ, এইচ ট্যাবলেট ও এইচ সিরাপের চাহিদা অন্য যেকোনো সময়ের তুলনায় কয়েক গুণ বেড়ে গেছে।

তিনি বলেন, কয়েক দিন ধরে প্রতি পাতা নাপা ১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আগে প্রতি পাতা আট টাকা ছিল। এ ছাড়া অন্যান্য প্যারাসিটামল ট্যাবলেটের দাম বাড়েনি। নাপা এক্সটেন প্রতি পাতা ১৫ টাকা, জি-ম্যাক্স প্রতি পাতা ১১০, এইচ প্লাস ২৪ টাকা পাতা বিক্রি হচ্ছে।

শাপলা চত্বরের থ্রি-স্টার ফার্মেসির স্বত্বাধিকারী মাসুদ বলেন, অন্য যেকোনো সময়ের তুলনায় প্যারাসিটামল জাতীয় ট্যাবলেটের চাহিদা এখন বেশি। এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে প্রথম সারির ওষুধ কোম্পানিগুলো থেকে প্যারাসিটামল গ্রুপের ট্যাবলেট সরবরাহ কমিয়েছে। আবার অনেক কোম্পানির প্রতিনিধি আসছেন না। এ কারণে চাহিদার তুলনায় সংকট মনে হচ্ছে। তবে ওষুধের দাম বাড়েনি।

বেক্সিমকো গ্রুপের হাকিমপুর উপজেলার রিপ্রেজেন্টেটিভ আলেমন হোসেন জানান, বর্তমানে সবার ঘরে ঘরে জ্বর হওয়ায় উৎপাদনের তুলনায় চাহিদা বাড়ছে। যে কারণে বাজারে সরবরাহ কমেছে। এই মাসের মধ্যে বাজারে সরবরাহ স্বাভাবিক হবে।

ওষুধ-সংকট সৃষ্টিকারীদের ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানান রংপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদ হাসান মৃধা। তিনি বলেন, এমন পরিস্থিতিতে প্রয়োজনীয় ওষুধের সংকট উদ্বেগজনক। আমরা বিভিন্ন সময়ে অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করেছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে তা-ই করা হবে।

তিনি বলেন, বৈশ্বিক এ দুর্যোগের সময় কেউ যদি ওষুধের সংকট তৈরি করে বা বেশি দাম নেয়, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। শুধু তা-ই নয়, অভিযোগ পেলে সেখানে অভিযান পরিচালনা করা হবে।

ঘরে ঘরে জ্বর-সর্দির প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ডা. আবু মো. জাকিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে বাধ্যতামূলক মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে হবে। একই সঙ্গে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ ও স্বাস্থ্য বিভাগের নির্দেশনা মেনে চলার বিকল্প নেই। অন্যথায় পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হতে পারে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য