দেশে সংক্রমণের নতুন রেকর্ড, আক্রান্ত ৮,৮২২ মৃত্যু ১১৫

দেশে সংক্রমণের নতুন রেকর্ড, আক্রান্ত ৮,৮২২ মৃত্যু ১১৫

জাতীয়

বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন ৮ হাজার ৮২২ জন রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এপর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সর্বোচ্চ সংখ্যা এটি।

গত এক দিনে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩৫ হাজার ১০৫ টি। যার প্রতি একশ’টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ২৫.১৩।

সবমিলিয়ে ৯ লাখ ১৩ হাজারের কিছু বেশি এখনো পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ১১৫ জন – যা এ পর্যন্ত একদিনে মৃত্যুর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংখ্যা।

সবচেয়ে বেশি মারা গেছেন খুলনা বিভাগে। সেখানে ৩০ জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

এরপর ঢাকা ও চট্টগ্রামে ২৩ জন করে মারা গেছেন।

মৃতদের মধ্যে ৭২ জন পুরুষ। এপর্যন্ত সব মিলিয়ে মারা গেছেন ১৪ হাজার ৫০৩ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বুলেটিনে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

কয়েক দিন ধরেই বাংলাদেশে রোগী শনাক্তের হার ২০ শতাংশের উপরে থাকছে।

২৭ জুন এক দিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড ছিল ১১৯ জন।

১৯ এপ্রিল এক দিনে সর্বোচ্চ ১১২ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বর্তমানে বাংলাদেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে ৪০টিই সংক্রমণের অতি উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে।

ঈদের পর থেকে ভারতের সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে দ্রুত রোগী বাড়তে থাকে।

বাংলাদেশে এখন সংক্রমণের ৮০ শতাংশই ডেল্টা ভেরিয়েন্ট বলে সরকারের একটি গবেষণায় জানা গেছে।

গত বছর মার্চের ৮ তারিখ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছিল। এরপর মে থেকে টানা কয়েকমাস সংক্রমণের হার ঊর্ধ্বমুখী ছিল।

শীতকালে সংক্রমণের হার কমতে থাকে এবং এক পর্যায়ে তা ৫ শতাংশের নিচে নেমে আসে।

তবে মার্চে আবারও বাড়তে থাকে সংক্রমণ। গত কয়েকদিন ধরেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্তের হার সাত হাজারের ঘরে রয়েছে।

গত কয়েকদিন ধরেই মৃত্যুর সংখ্যাও একশ’র উপরে থাকছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য