বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মাস্টারশেফ কিশোয়ারকে ​ভারতীয় আখ্যা ইন্ডিয়ান মিডিয়ার

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মাস্টারশেফ কিশোয়ারকে ​ভারতীয় আখ্যা ইন্ডিয়ান মিডিয়ার

আন্তর্জাতিক

রান্নাবিষয়ক রিয়েলিটি শো ‘মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়া’য় বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত প্রতিযোগী কিশোয়ার চৌধুরীর সুনাম এখন সর্বত্র। প্রতিযোগিতায় একের পর এক চমক দেখিয়ে চলেছেন তিনি। তিনি বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত হলেও ভারতের মিডিয়ায় সম্প্রতি কিশোয়ার চৌধুরীকে ভারতীয় বলে অ্যাখা দেওয়া হয়েছে।

কালা ভুনার রেসিপি দিয়ে মাতোয়ারা করেন মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ার বিচারকদের। তারপর বিশ্বজয় করে তার রান্না মাছের ঝোল। পরবর্তীতে বাংলাদেশের কিশোয়ার চৌধুরী বিচারকদের হাততালি কুড়োন চিরচেনা আলুর দমের ফুচকা, চটপটি আর সমুচা বানিয়ে। এভাবেই প্রতিযোগিতায় বিচারকদের তাক লাগিয়ে চলছেন কিশোয়ার।

কিশোয়ারকে ‘মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়া’র ১৩ তম সিজনের তারকা হিসেবে দেখছে বিশ্বের শীর্ষ সব গণমাধ্যম। অস্ট্রেলিয়ার পত্র পত্রিকাসহ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রশংসায় ভাসছেন কিশোয়ার এবং তাঁর বাঙালি খাবারের প্রতি ভালোবাসা। কিন্তু সম্প্রতি ইন্ডিয়ান টাইমস এর প্রতিবেদনে তাকে ভারতীয় বংশোদ্ভূত বলে অ্যাখা দেওয়া হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘প্রতিযোগিতায় ভারতীয় দেশীয় খাবার রয়েছে। দুধের তৈরি আইসক্রিমটি গ্রীষ্মের সময় ভারতের সকলের কাছেই কমবেশি জনপ্রিয়। এটি আমাদের নিজস্ব কুলফি। এই সুস্বাদু খাবারটি আমাদের শৈশবে ফিরিয়ে নিয়ে যায়। যা ১৬ শতাব্দীত ভারতে প্রথম তৈরি হয়। আর এই সুস্বাদু কুলফি মাস্টারশেফ প্রতিযোগিতায় তুলে ধরেছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত কিশোয়ার চৌধুরী’। এভাবেই সংবাদমাধ্যমটিতে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কিশোয়ারকে ভারতীয় বলে উপস্থাপন করা হয়।

কিশোয়ার চৌধুরীর বাবা বাংলাদেশি। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। ৫০ বছর আগে অস্ট্রেলিয়াতে পাড়ি জমান। মা’র বাড়ি কলকতায়। ভিক্টোরিয়া রাজ্যের মেলবোর্নের বাসিন্দা কিশোয়ার চৌধুরীর জন্ম ও বেড়ে ওঠা অস্ট্রেলিয়াতেই। পেশায় কিশোয়ার একজন ‘বিজনেস ডেভেলপার’। দুই সন্তানের মা কিশোয়ার সন্তানদের জন্য বাংলাদেশি খাবার রান্না করতে গিয়েই পরিবারের কাছ থেকে শিখেছেন নানান রেসিপি। তাঁকে নিয়ে বাংলাদেশিদের মতোই গর্বিত তাঁর পরিবারও। -বাংলা ট্রিবিউন

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য