বীরগঞ্জে গরমে বেড়েছে তালশাঁসের চাহিদা

বীরগঞ্জে গরমে বেড়েছে তালশাঁসের চাহিদা

দিনাজপুর

দিনাজপুর সংবাদাতাঃ প্রচন্ড অসহনীয় গরমে দিনাজপুরের বীরগঞ্জে কদর বেড়েছে তালশাসের। এই গরমে শরীরের পানিশূন্যতা ও ক্লান্তি দূর করতে সহায়ক ভূমিকা রাখে কচি তালশাস। সহজলভ্য ও মুখরোচক হওয়ায় এ সময় বিভিন্ন বয়সী মানুষের পছন্দের তালিকায় থাকে তালশাঁস।

তালের নরম কচি শাস খেতে সুস্বাদু হওয়ায় বর্তমানে এর চাহিদা বেড়েছে। যদিও দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রত্যন্ত গ্রামে আগের মত তালগাছ নেই তার পরও বছরে একবার হলেও এর চাহিদা ব্যাপক হারে বাড়ে।

তালশাঁস বিক্রেতা শরিফুল বলেন, সবার কাছেই এখন প্রিয় তালেরর্শাস। আবার মৌসুমি ফল বলে শখের বশেই অনেকে এটি খায়। দামেও বেশ সস্তা। তাই বাজারে কদরও বেশি।

বীরগঞ্জ উপজেলা সুজালপুর ইউনিয়নের ভাদুরীয়া এলাকাজুড়ে বেশকিছু তালগাছ আছে। সেখান থেকে কিনে এনে ভ্রাম্যমান ভ্যানে করে বিক্রি করছি এসব তালশাঁস। উপজেলার নিজপাড়া ইউনিয়নের বানপাড়া গ্রামের তালের র্শাস বিক্রেতা মো: শাহাদত হোসেন জানান,তিনি প্রতি বছরই এসময় তালশাঁস বিক্রি করে সংসার চালান।

গ্রামে গ্রামে ঘুরে তিনি তাল ক্রয় করে গাছ থেকে পেড়ে এনে শাস বিক্রি করেন। বৈশাখ মাস থেকে জ্যৈষ্ঠের অর্ধেক পর্যন্ত চলবে তালশাঁস বিক্রি। তিনি আরও বলেন, প্রচ- গরম থাকায় তালশাঁসের চাহিদা রয়েছে বেশি। তালেশাঁসের পিস বিক্রি হচ্ছে ১০- ১৫ টাকায়।

প্রতিদিন প্রায় ১০০-৩০০ র্শাস বিক্রি হয়। এতে তার ভালোই লাভ হয়ে থাকে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য