আজিমপুর স্টাফ কোয়ার্টারের বাসা থেকে ঢাবি ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার

জাতীয়

রাজধানীর আজিমপুর স্টাফ কোয়ার্টার থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। রবিবার সকাল ৬ টার দিকে অজ্ঞান অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওই শিক্ষার্থীর নাম ইশরাত জাহান তুষ্টি। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজী বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তার বাড়ি নেত্রকোণার আটপাড়া উপজেলার সুখারী থানার নীলকণ্ঠপুর গ্রামে।

তুষ্টির রুমমেট বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের রাহনুমা তাবাসসুম রাফি বলেন, ‘গতকাল বিকেলে আমরা কয়েকজন বন্ধুসহ নিউমার্কেট গিয়েছিলাম। নিউ মার্কেট থেকে ফেরার পথে হালকা বৃষ্টিতে ভিজেছিলাম। আমরা জানতাম না তুষ্টির অ্যাজমার সমস্যা রয়েছে। বিকেল ৩টায় আমরা বাসায় ফিরে আসি। তখন তুষ্টি বলেছিলো তার কিছুটা শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। রাতে আমরা যখন ঘুমিয়ে পড়ছিলাম তখন মুভি দেখছিলো বা ফোন স্ক্রল করছিলো। সকাল বেলা বাসার আন্টির ডাকাডাকিতে আমাদের ঘুম ভাঙে।’

তিনি বলেন, ‘আন্টি এসে আমাদের বলছিলো বাথরুমের দরজা বন্ধ কেনো? অনেকক্ষণ ধরে কলের পানি পড়ছে। তখন আমরা দেখি বাথরুমের দরজা বন্ধ করা কিন্তু তুষ্টি তার বেডে নেই। অনেকক্ষণ ধাক্কাধাক্কি করেও দরজা খুলতে না পেরে আমরা ফায়ার সার্ভিসে কল দেই। ফায়ার সার্ভিস এসে সকাল ছয়টায় তাকে উদ্ধার করে।’

ইশরাত জাহান তুষ্টি শ্বাসকষ্টজনিত কারণে মারা যেতে পারে বলে ধারণা করছে তুষ্টির সহপাঠী ও রুমমেটরা। সহপাঠীরা বলছে, আগে থেকেই তুষ্টির অ্যাজমার সমস্যা। শনিবার রাতে ওয়াশরুমে যাওয়ার পর শ্বাসকষ্ট উঠলে দরজা খুলে বের হতে না পারায় তার মৃত্যু হতে পারে।

ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. একেএম গোলাম রব্বানী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘আজ সকালে আজিমপুর স্টাফ কোয়ার্টার থেকে আমাদের একজন ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।’

লালবাগ থানার ওসি (তদন্ত) খন্দকার হেলালুদ্দীন বলেন, ‘আমরা স্পটে যাওয়ার আগে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন তাকে এখানে নিয়ে এসেছে। এখনো পর্যন্ত কোনো কিছুই বলতে পারছি না।’