ইসরায়েলের সঙ্গে ভবিষ্যতেও কূটনৈতিক সম্পর্কের সম্ভাবনা নেই

ইসরায়েলের সঙ্গে ভবিষ্যতেও কূটনৈতিক সম্পর্কের সম্ভাবনা নেই

জাতীয়

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘ইসরায়েলের সঙ্গে বাংলাদেশের কোনো কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই। ভবিষ্যতেও হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।’ সচিবালয়ে আজ সোমবার নিজ দপ্তরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী।

পাসপোর্ট থেকে ইসরায়েলবিষয়ক নিষেধাজ্ঞা তুলে দেওয়ার বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পাসপোর্টে পরিবর্তনটি ইন্টারন্যাশনাল নর্মসের কারণে করা হয়েছে। এতে কোনোভাবেই ইসরায়েলের উল্লসিত হওয়ার কারণ নেই। কারণ, ইসরায়েলের সঙ্গে আমাদের কোনো কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই। ভবিষ্যতেও হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। এবং পাসপোর্টে যাই লেখা থাকুক না কেন, বাংলাদেশিদের জন্য ইসরায়েল ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা থাকবে। একই সঙ্গে ইসরায়েলি পাসপোর্ট নিয়ে কারও বাংলাদেশে আসাটাও বন্ধ থাকবে।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘পৃথিবীর অনেক মুসলিম দেশের সঙ্গে ইসরায়েলের কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই, সেসব দেশের নাগরিকেরা তাদের পাসপোর্ট নিয়ে ইসরায়েল ভ্রমণ করেন না। কিন্তু, তাদের পাসপোর্টে সেই কথাটি উল্লেখ নেই, আমাদের পাসপোর্টে যেটি উল্লেখ ছিল। সুতরাং ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা ও ইসরায়েলের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে আমাদের যে নীতি, ইসরায়েলের আগ্রাসনের মাধ্যমে মানবতার বিরুদ্ধে যে অপরাধ নিয়মিতভাবে সংগঠিত হয়ে আসছে, সেটির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের যে অবস্থান, তা একই জায়গায় আছে। বরং সাম্প্রতিককালে ইসরায়েলের পক্ষ থেকে যে হামলা হয়েছে, বাংলাদেশ আরও সংক্ষুব্ধ হয়েছে, প্রতিবাদ জানিয়েছে।’

সম্প্রতি বাংলাদেশের পাসপোর্টে ‘ইসরায়েল ছাড়া এই পাসপোর্ট বিশ্বের সব দেশের জন্য বৈধ’ (দিস পাসপোর্ট ইজ ভ্যালিড ফর অল কান্ট্রিজ অব দ্য ওয়ার্ল্ড এক্সেপ্ট ইসরায়েল) কথাটি বদলে এখন লেখা হচ্ছে, ‘এই পাসপোর্ট বিশ্বের সব দেশের জন্য বৈধ (দিস পাসপোর্ট ইজ ভ্যালিড ফর অল কান্ট্রিজ অব দ্য ওয়ার্ল্ড)। কোনো ঘোষণা ছাড়াই এই পদক্ষেপ নেওয়ায় সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এ নিয়ে আলোচনা শুরু হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য