দিনাজপুর নবাবগঞ্জে আদিবাসী স্কুল ছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

দিনাজপুর

নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ থানায় এক আদিবাসী স্কুল ছাত্রীকে(১৪)কে অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগে একটি মামলা দায়ের হয়েছে।

শুক্রবার ওই স্কুল ছাত্রীর মা বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। মামলা সূত্রে জানা যায় উপজেলার একটি গ্রামের ওই স্কুল ছাত্রী ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী। স্কুল বন্ধ থাকায় সে জয়পুরহাট থেকে বাড়ীতে আসে। ঘোড়াঘাট উপজেলার সাতআনা গ্রামের থমাস মুরমুর ছেলে জহুর ওরফে হিরো মুরমু(২৫) ওই স্কুল ছাত্রীর বাড়ীর প্রতিবেশি এক জনের গ্যারেজে সাইকেল মেকারের কাজ করত।

সেই সুবাদে ওই স্কুল ছাত্রীর সাথে তার পরিচয় হয়। প্রায় সময় জহুর ওরফে হিরো মুরমু ওই স্কুল ছাত্রীকে ভালবাসার প্রস্তাব সহ বিয়ের প্রলোভন দিয়ে উত্যক্ত করত। এমতাবস্থায় গত ১৮ মে সকালে ওই আদিবাসী স্কুল ছাত্রী বাড়ীর পার্শ্বে পাকা রাস্তার উপরে গেলে জহুর ওরফে হিরো মুরমু তাকে রাস্তায় একাকী পেয়ে প্রলোভন ও ফুসলিয়ে সিএনজিতে করে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এরপর ওই স্কুল ছাত্রীর অভিভাবক খোজ করে জানতে পারেন তার মেয়েকে নওগাঁ জেলার ধামইরহাট উপজেলার বটতলী আদিবাসী পাড়ায় একটি বাড়ীতে নিয়ে রাখা হয়েছে।

এব্যাপারে মামলারর বাদী নবাবগঞ্জ থানায় ১৮ মে একটি জিডি করে ছিলেন। এরপর পুলিশের সহযোগিতায় সেখান থেকে অপহৃতকে উদ্ধার সহ অপহরণকারীকে আটক করা হয়। থানায় দায়ের কৃত মামলায় আটক জহুর ওরফে হিরো মুরমুেেক গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। মামলায় উল্লেখ করা হয় ওই স্কুল ছাত্রীকে একাধিকবার জোর পূর্বক ধর্ষণ করা হয়। নবাবগঞ্জ থানার কর্তব্যরত অফিসার এ এস আই রোকুনুজ্জামান জানান গ্রেফতারকৃত জহুর ওরফে হিরো মুরমুকে আজ শুক্রবার আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য