সৈয়দপুর বিমানবন্দর মার্কেটে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্নের প্রতিবাদে ব্যবসায়ীদের সড়ক অবরোধ

সৈয়দপুর বিমানবন্দর মার্কেটে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্নের প্রতিবাদে ব্যবসায়ীদের সড়ক অবরোধ

রংপুর বিভাগ

মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদাতাঃ নীলফামারীর সৈয়দপুরে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর মার্কেটের দোকানগুলোর বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন ও পানি সরবরাহ লাইন বিমানবন্দর ম্যানেজার কর্তৃক জোড়পূর্বক বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগে সড়ক অবরোধ করেছো ব্যবসায়ীরা। বুধবার (১৯ মে) সকাল ১০ টায় বিমানবন্দরের প্রবেশ পথে ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড মার্কেটের সামনে ঘন্টাব্যাপী অবস্থান করে তারা প্রতিবাদ জানান। পরে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে অবরোধ স্থগিত হলেও এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

মার্কেটের দোকানদার এরশাদ হোসেন অভিযোগ করে বলেন, বিমানবন্দরের আগের ম্যানেজার শাহিন আহমেদ এর সাথে নিয়মতান্ত্রিক চুক্তির মাধ্যমে এই মার্কেটটি তৈরী করা হয়েছে। আমরা দোকানদাররা সম্মিলিতভাবে পজেশন অনুযায়ী অর্থ দিয়ে মার্কেট স্থাপনে সহযোগীতা করেছি। তিনি যতদিন এখানে ছিলেন ততদিন আমরা অত্যন্ত সুন্দরভাবে ব্যবসা পরিচালনা করেছি।

এনামুল বলেন, বর্তমান ম্যানেজার সুপ্লব কুমার ঘোষ আসার পর থেকেই নানাভাবে হয়রানী শুরু করেছেন। তিনি এসেই প্রথমে ভাড়া বৃদ্ধি করে। এরপর মার্কেটে একের পর এক চুরি সংঘটিত হয়। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানালে তিনি একজন সিকিউরিটি গার্ড তথা নৈশ প্রহরী দিতেও অস্বীকৃতি জানান। এমনকি আমরা নিজেদের খরচায় একজনকে দায়িত্ব দিতে চাইলেও সম্মতি দেয়নি।

হেলাল জানান, একারণে আরও ৪ টি দোকানে বড় ধরনের চুরি হয়। এতে প্রায় ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়। ইতোপূর্বেও চুরির বিষয়ে প্রশাসনকে জানাতে নিষেধ করেন ম্যানেজার। আবার নিজেও কোন সুরাহা করেননি। তাই এবার চুরির খবর পুলিশকে জামানো হয়। এতে ম্যানেজার ক্ষিপ্ত হয়ে উল্টো আমাদেরকেই শাসায়।

ফারহান বলেন, এরপর মার্কেটের পাশের জমিতে ম্যানেজার তার নিজস্ব লোকজনকে দিয়ে আরও দোকান তৈরির উদ্যোগ নেন। এমনিতেই মার্কেটের ৪০ টি দোকানই ঠিকভাবে চলছেনা। তার উপর অতিরিক্ত দোকান করা হলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। তাই আমরা এর প্রতিবাদ করি।

এমতাবস্থায় গত প্রায় ৫ মাস থেকে দোকানের বিদ্যুৎ বিলের কোন প্রকার কাগজ না দিয়েই মৌখিকভাবে বিলের টাকা আদায় শুরু করেন ম্যানেজার। এতে কয়েকজন ব্যবসায়ী বিল দিলেও অধিকাংশরাই এভাবে বিল দিতে অস্বীকৃতি জানাই। এতে প্রায় ৫ মাসের বিল অপরিশোধিত থাকে।

এরই প্রেক্ষিতে হঠাৎ করে ম্যানেজার নীলফামারী থেকে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট বেলায়েত হোসেন কে ডেকে এনে অভিযান চালানোর নামে জোরপূর্বক আমাদের দোকানের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেন। সে সাথে বিমানবন্দরের সিভিল ইঞ্জিনিয়ার জাহেদুল ইসলামকে দিয়ে পানি সরবরাহের লাইনও বন্ধ করে দেন। এতে আমরা চরম দূরাবস্থার মধ্যে পড়েছি। তাই এর প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ করতে বাধ্য হয়েছি।

খবর পেয়ে সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাসিম আহমেদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে দোকানদারেরা লিখিত অভিযোগ করতে বলেন এবং তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার আস্বাস দেন। এতে অবরোধ তুলে নেয় ব্যবসায়ীরা।

এ ব্যাপারে বিমানবন্দর ম্যানেজার সুপ্লব কুমার ঘোষ এর ০১৭০৮১৬৭৩০৭ নম্বরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এই মার্কেটটি সম্পূর্ণ অবৈধ। এ বিষয়ে আরও কিছু জানার থাকলে উর্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করেন। তার বিরুদ্ধে দোকানদারদের আনিত অভিযোগ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য