কষ্ট-ভোগান্তি আর বাড়তি ভাড়া দিয়ে ঢাকামুখী মানুষ

জাতীয়

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রী ও গাড়ির চাপ নেই। মঙ্গলবার সকাল থেকে মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাট থেকে গাড়ি ও যাত্রী বোঝাই ফেরি ছেড়ে এলেও শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রীদের চাপ নেই।

তবে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় শিমুলিয়া ঘাটে এসে যাত্রীদের ঢাকাসহ গন্তব্যে ফিরতে পোহাতে হচ্ছে বিড়ম্বনা। গুনতে হচ্ছে বাড়তি ভাড়া। এখন অধিকাংশ যাত্রীর ভরসা সিএনজিচালিত অটোরিকশা। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে চালকরা ২-৩ গুণ বেশি ভাড়া আদায় করছে বলে যাত্রীদের অভিযোগ।

সরেজমিনে দেখা যায়, শিমুলিয়ার তিনটি ফেরিঘাটের সামনে সারি সারি করে সিএনজি রাখা হয়েছে। প্রতিটি সিএনজিতে ৫/৬ জন করে যাত্রী নেয়া হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধির একবারে তোয়াক্কা করছে না এসব পরিবহন।

সিএনজিগুলো অন্য সময় শিমুলিয়া ঘাট থেকে জনপ্রতি ঢাকার পোস্তগোলা, নয়াবাজার, নারায়ণগঞ্জে ১৫০ টাকা, সায়েদাবাদে ১৫০-১৭০ টাকা, মোহাম্মদপুরে ৩০০ টাকা, মুন্সিগঞ্জ সদর, মুক্তারপুরে ১০০ টাকা ভাড়ায় নিয়মিত যাতায়াত করত। তবে বর্তমানে প্রতিটি রুটেই ২-৩ গুণ বেশি ভাড়া গুনতে হচ্ছে যাত্রীদের।

বর্তমানে শিমুলিয়া ঘাট থেকে পোস্তগোলা ও নয়াবাজারে ৩০০ টাকা, সায়েদাবাদে ৩৫০/৪০০ টাকা, মোহাম্মদপুরে ৫০০/৬০০ টাকা, মুন্সিগঞ্জ সদর, মুক্তারপুরে ২০০ টাকা ও নারায়ণগঞ্জে ৩০০/৪০০ টাকা দিয়ে যেতে হচ্ছে যাত্রীদের।

এ ব্যাপারে শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) ফয়সাল আহম্মেদ বলেন, ঘাটে এখন ১৮টি ফেরি চলছে। ওপার থেকে যাত্রীরা ফেরিতে চড়ে আসছে। শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রী-গাড়ি কোনটারই চাপ নেই। তবে ওপারে কিছুটা চাপ রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য