ঘূর্ণিঝড় তাওকতে: ভারতে একাধিক এলাকায় রেড অ্যালার্ট জারি

ঘূর্ণিঝড় তাওকতের আগাম প্রভাবে নিহত ৬, একাধিক এলাকায় রেড অ্যালার্ট জারি

আন্তর্জাতিক

ঘূর্ণিঝড় তাওকতের আগাম প্রভাব শুরু হয়েছে ভারতের কেরালা ও কর্ণাটকের উপকূলে। এই দুই জায়গায় মোট ছয়জন নিহত হয়েছেন।

যে ছ’টি জেলায় ঝড়ের দাপট সবচেয়ে বেশি, তার মধ্যে তিনটি উপকূলবর্তী ও তিনটি পশ্চিমঘাট পর্বত সংলগ্ন। রবিবার (১৬ মে) এসব তথ্য দিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজার।

বলা হয়েছে, রবিবার সকাল থেকেই মহারাষ্ট্র, গোয়া, কর্নাটক ও গুজরাত, অর্থাৎ ভারতের পশ্চিম উপকূল জুড়েই ঝড়ের আগাম প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। উত্তাল হয়েছে সমুদ্র। আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে সৌরাষ্ট্র, কচ্ছ, দিউ-এর উপকূলবর্তী অংশে বিপুল বৃষ্টি চলবে।

ভারতের আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ‘মারাত্মক ঘূর্ণিঝড়ে’ পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তাওকতের। এরপর সেটি উত্তর-উত্তর পশ্চিম দিকে রওনা দিয়ে মঙ্গলবার পৌঁছবে গুজরাটে।

ইতোমধ্যে আবহাওয়া অফিস দিউ উপকূলসহ গুজরাটের একাধিক এলাকায় ‘রেড অ্যালার্ট’ জারি করেছে। কেরালার কোচি উপকূল থেকে মানুষকে সরানোর কাজ শুরু হয়েছে।

ভারতীয় গণমাধ্যমের তথ্য মতে, এই ঘূর্ণিঝড়ের নাম দেওয়া হয়েছে ‘তাওকতে’। এরই মধ্যে ভারতের মহারাষ্ট্র, কেরালা ও গুজরাটে ভারি বৃষ্টির সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

সোমবার রাতে ঘূর্ণিঝড়ের দাপট সব থেকে বেশি থাকবে। ঘণ্টায় ১৫০-১৬০ কিলোমিটার বেগে বইবে ঝড়। কখনও কখনও তা ঘণ্টায় ১৭৫ কিলোমিটারে পৌঁছে যেতে পারে।

ঘূর্ণিঝড়ের জেরে রোববার পর্যন্ত কেরালা, কর্ণাটক ও গোয়া উপকূলে প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। আর বিকেল থেকে মুম্বাইয়েও ভারি বর্ষণ হতে পারে।

পরিস্থিতি মোকাবিলায় ১৮টি হেলিকপ্টার এবং ১৬টি পণ্যবাহী বিমান প্রস্তুত রেখেছে ভারতীয় বিমান বাহিনী।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য