ভারতে নতুন তিন লাখের বেশি রোগী শনাক্ত, মৃত্যু ৩৮৯০

ভারতে নতুন তিন লাখের বেশি রোগী শনাক্ত, মৃত্যু ৩৮৯০

আন্তর্জাতিক

কোভিড-১৯ এর দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত ভারতে ফের তিন লাখের বেশি রোগী শনাক্ত হলেও নতুন সংক্রমণ কিছুটা কম পাওয়া গেছে, তিন দিন পর মৃত্যুর সংখ্যা চার হাজারের নিচে নেমেছে।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্যে দেখা গেছে, শনিবার সকালের আগের ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে তিন লাখ ২৬ হাজার ৯৮ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে আর একই সময় আরও ৩৮৯০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এই নিয়ে তিন সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে ভারতে দৈনিক তিন লাখের বেশি রোগী শনাক্ত হল। মাঝে টানা কয়েকদিন চার লাখেরও বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছিল। তবে এদিন আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্তের সংখ্যা কিছুটা কম ছিল।

শনাক্ত নতুন রোগীদের নিয়ে দেশটিতে মোট করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দুই কোটি ৪৩ লাখ ৭২ হাজার ৯০৭ জনে। শনাক্ত রোগীর সংখ্যায় যুক্তরাষ্ট্রের পর বিশ্বে দ্বিতীয় স্থানে আছে দেশটি।

করোনাভাইরাস মহামারীতে মৃতের সংখ্যা যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের পর দ্বিতীয় স্থানে থাকা দেশটিতে মোট মৃত্যু দুই লাখ ৬৬ হাজার ছাড়িয়েছে।

ভারতে সংক্রমণ শহর-নগরগুলো ছাড়িয়ে প্রত্যন্ত এলাকাগুলোতে ছড়িয়ে পড়ায় ভাইরাস আক্রান্ত আরও বহু লোক পরীক্ষার আওতার বাইরে রয়ে গেছে বলে ধারণা স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের। দেশটিতে প্রকৃত আক্রান্তের সংখ্যা সরকারি হিসাবের পাঁচ থেকে ১০ গুণ বেশি হবে বলে মনে করেন তারা।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ভারতের পরিস্থিতিকে ‘অতিশয় উদ্বেগজনক’ বলে বর্ণনা করেছে।

ভারতে কোভিড-১৯ থেকে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা দুই কোটি ছাড়িয়েছে বলে দেশটির গণমাধ্যম জানিয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার পর্যন্ত দেশটিতে ১৮ কোটিরও বেশি ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে।

এদিন ৩১ মার্চের পর প্রথমবারের মতো মহারাষ্ট্রে দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৪০ হাজারের নিচে নেমেছে। ভারতের সবচেয়ে মহামারী আক্রান্ত এ রাজ্যটিতে এ পর্যন্ত প্রায় ৮০ হাজার লোক মারা গেছে।

শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গে একদিনে সর্বোচ্চ ২০ হাজার ৮৪৬ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। এতে রাজ্যটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লাখ ৯৪ হাজার ৮০২ জনে দাঁড়িয়েছে। রাজ্যটিতে মহামারীতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এক ভাই ও বিশিষ্ট পাঁচ চিকিৎসকসহ ১২ হাজার ৯৯৩ জন মারা গেছেন।

সংক্রমণের রাশ টানতে সোমবার থেকে এক সপ্তাহের লকডাউনে যাচ্ছে সিকিম। এই নিয়ে মিজোরাম ও নাগাল্যান্ডের পর দেশটির উত্তরপূর্বাঞ্চলের তৃতীয় রাজ্য লকডাউন জারি করল।

ভারতে শনাক্ত করোনাভাইরাস রোগীর সংখ্যা ১৯ ডিসেম্বর এক কোটি ছাড়িয়েছিল, কিন্তু এরপর ছয় মাসেরও কম সময়ের মধ্যে এটি দ্বিগুণ হয়ে ৪ মে দুই কোটি ছাড়ায়। এখন দৈনিক যে হারে নতুন রোগী বাড়ছে তাতে আর দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে দেশটিতে মোট রোগীর সংখ্যা আড়াই কোটি ছাড়াবে বলে ধারণা পাওয়া যাচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য