থাইল্যান্ডে বিচারের মুখে মিয়ানমারের পালিয়ে যাওয়া তিন সাংবাদিকসহ ৫ জন

থাইল্যান্ডে বিচারের মুখে মিয়ানমারের পালিয়ে যাওয়া তিন সাংবাদিকসহ ৫ জন

আন্তর্জাতিক

মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের পর পালিয়ে যাওয়া তিন সাংবাদিক ও দুই আন্দোলনকর্মীর বিচার শুরু করতে চলেছে থাইল্যান্ড। তাদের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে সেদেশে প্রবেশের অভিযোগ আনা হয়েছে।

দোষী সাব্যস্ত হলে তাদেরকে তাৎক্ষণিকভাবে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হতে পারে। কিন্তু মিয়ানমারে ফিরে গেলে প্রাণনাশের আশঙ্কা আছে বলে জানিয়েছেন এই সাংবাদিক ও আন্দোলনকর্মীরা।

বিবিসি জানায়, চিয়াং মাই এলাকায় তাদের বিচার শুরু হওয়ার কথা ছিল মঙ্গলবারই। তবে তা ছয়দিন পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

মিয়ানমারে গত ১ ফেব্রুয়ারির সেনা অভ্যুত্থানের পর বহু সাংবাদিক আটক হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগও আনা হয়েছে। নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে নিহত হয়েছে সাড়ে সাতশ’র বেশি মানুষ।

এছাড়াও আটক হয়েছে কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী। কাস্টডিতে থাকা বহু মানুষের ওপর নির্যাতন চলার একাধিক খবরও এসেছে। আহত অনেকে মারাও গেছেন।

মিয়ানমার থেকে থাইল্যান্ডে পালিয়ে যাওয়া তিন সাংবাদিকসহ পাঁচ জনের নাম এখনও প্রকাশ করেনি দেশটির কর্তৃপক্ষ। গত রোববার তাদেরকে চিয়াং মাই শহর থেকে আটক করেছিল থাই পুলিশ।

তিন সাংবাদিক মিয়ানমারের সুপরিচিত সম্প্রচারমাধ্যম ডেমোক্র্যাটিক ভয়েস অব বার্মায় (ডিভিবি) কাজ করেন। মিয়ানমার জান্তা অনেক সংবাদ মাধ্যমের মতো ডিভিবিকেও নিষিদ্ধ করেছে।

থাইল্যান্ডে পালিয়ে যাওয়া সাংবাদিকদের যাতে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো না হয়, সেজন্য ডিভিবি’র পক্ষ থেকে থাই কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে। বলা হয়েছে, মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হলে তাদের জীবন গুরুতর ঝুঁকিতে পড়বে।

থাইল্যান্ডে বিচারের মুখে পড়া পাঁচজনের জন্য জাতিসংঘের শরণার্থী-বিষয়ক হাইকমিশনার এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়েরও সহায়তা চেয়েছে ডিভিবি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য