জেরুজালেমে আল আকসা মসজিদের কাছে ফিলিস্তিনি-ইসরায়েলি সংঘর্ষ

জেরুজালেমে আল আকসা মসজিদের কাছে ফিলিস্তিনি-ইসরায়েলি সংঘর্ষ

আন্তর্জাতিক

ইসরায়েল ১৯৬৭ সালের আরব-ইসরায়েল যুদ্ধে জেরুজালেমের কিছু অংশ দখল করে নেওয়ার বার্ষিকী ‘জেরুজালেম দিবস’ পালন কালে শহরটির আল আকসা মসজিদের সামনে ফিলিস্তিনি বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে ইসরায়েলি পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার ফিলিস্তিনি প্রতিবাদকারীরা পাথর নিক্ষেপ করে আর ইসরায়েলি পুলিশ শব্দ বোমা ও রবার বুলেট ছুড়ে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

ফিলিস্তিনি রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি জানিয়েছে, এ সহিংতায় ১৮০ জনেরও বেশি ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন, তাদের মধ্যে ৮০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে একজনের অবস্থা সঙ্কটজনক।

মুসলিমদের তৃতীয় পবিত্র স্থান আল আকসা পুরো রমজানজুড়ে জেরুজালেমের সহিংসতার কেন্দ্রস্থল হয়ে আছে। দুই পক্ষের এই সংঘর্ষের ঘটনা আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও উদ্বেগ ছড়িয়েছে।

ইসরায়েলের ‘জেরুজালেম দিবস’ পালনকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা চরমে পৌঁছে। এই দিনটিতে পূর্ব জেরুজালেম এবং মুসলিম, ইহুদি ও খ্রিস্টানদের পবিত্র স্থানগুলো যেখানে অবস্থিতি সেই দেয়াল ঘেরা পুরনো শহর দখলের বার্ষিকী পালন করে ইসরায়েল।

ইসরায়েলি পুলিশ জানিয়েছে, পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টায় তারা জেরুজালেম দিবসে আল আকসার পবিত্র প্লাজা, বাইবেলে বর্ণিত ইহুদি মন্দির হিসেবে ইহুদিরা যে স্থানটিকে শ্রদ্ধা করে সেখানে ইহুদিদের পরিদর্শনে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

জেরুজালেম দিবস উপলক্ষে প্রতি বছর কয়েক হাজার ইহুদি তরুণ ইসরায়েলের পতাকা নিয়ে পুরনো শহরের দামেস্ক গেইট হয়ে মুসলিম অধ্যুষিত এলাকাগুলোর ভেতর দিয়ে মিছিল নিয়ে যায়। এবার এই মিছিলটিকে অন্য পথে চালিত করা যায় কিনা তা তারা বিবেচনা করে দেখছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, আল আকসার প্লাজায় তাদের দিকে পাথর নিক্ষেপরত কয়েকশত ফিলিস্তিনিকে লক্ষ্য করে ইসরায়েলি পুলিশ কাঁদুনে গ্যাস, শব্দ বোমা ও রবার বুলেট ছুড়েছে।

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর মুখপাত্র ওফির গেনডেলমান এক টুইটে বলেছেন, “আজ টেম্পল মাউন্টে সহিংসতা করার জন্য উগ্রপন্থি ফিলিস্তিনিরা আগে থেকেই ভালো পরিকল্পনা করে রেখেছিল। আমরা এখন যা দেখছি তা তারই ফলাফল।”

পুলিশ জানিয়েছে, শান্তি রক্ষার্থে তারা জেরুজালেমের সড়কগুলো ও বিভিন্ন ছাদে কয়েক হাজার পুলিশ মোতায়েন করেছে।

জেরুজালেমের দখল করা পূর্ব অংশ ইসরায়েল নিজেদের ভূখণ্ডের অংশ করে নিলেও তাতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের সায় মেলেনি, তারপরও পুরো জেরুজালেমকে নিজেদের রাজধানী হিসেবে দেখে ইসরায়েল।

অপরদিকে ফিলিস্তিনিরা ইসরায়েলের দখলকৃত পশ্চিম তীর ও গাজা ভূখণ্ড নিয়ে যে রাষ্ট্র গড়ার স্বপ্ন দেখে তার রাজধানী করতে চায় পূর্ব জেরুজালেমকে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য