ঘোড়াঘাটে করতোয়া নদীর ওপর বেইলি ব্রীজটি দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে ভারী যানবাহন চলাচল

ঘোড়াঘাটে করতোয়া নদীর ওপর বেইলি ব্রীজটি দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে ভারী যানবাহন চলাচল

দিনাজপুর

দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা ও গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার যোগাযোগের সবচেয়ে সহজ ও দ্রুততম মাধ্যম করতোয়া নদীর উপরে নির্মিত বেইলি ব্রীজ। কিন্তু জরাজীর্ণ এই বেইলি ব্রীজটি দিয়ে প্রতিনিয়ত ভারী যানবাহন চলাচলের কারণে ঘটতে পারে যে কোন সময় বড় দূর্ঘটনা। নির্মাণের পর দীর্ঘদিন অতিবাহিত মেয়াদ উত্তীর্ণ এ বেইলি ব্রীজটি মেরামতের কোন খোঁজ খবর নেই। বিকল্প সড়ক না থাকায় প্রতিদিন বাধ্য হয়ে ঝুঁকিপূর্ল এ সেতু দিয়ে চলাচল করছে ভারী যানবাহনসহ হাজার হাজার যাত্রী ও কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। ঝুঁকিপূর্ণ সেতুর উপর দিয়ে ১৫/২০ টন ওজনের মালামাল নিয়ে অবাধে চলাচল করছে ট্রাকসহ ভারী যানবাহন।

জানা যায়, আনোয়ার হোসেন মঞ্জু প্রথম যোগাযোগ মন্ত্রী হলে করতোয়া নদীর ওপর ব্রীজটি গুরুত্ব অনুভব করে একটি পূর্ণাঙ্গ ব্রীজ নির্মাণের টেন্ডার আহব্বান করেন। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ব্রীজ নির্মাণের জন্য আর সি সি পাইলিংযের কাজ সম্পন্ন করার পরপরই দেশে রাজনৈতিক পট পরিবর্তন হলে ব্রীজটির নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘ সময় পর ১৯৯৬ সালে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসলে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু দ্বিতীয় বার যোগাযোগ মন্ত্রী হয় সে সময় পূর্ণাঙ্গ ব্রীজটির বাজেট বরাদ্দ না হওয়ায় ১৯৯৮ সালে একটি বেইলি ব্রীজ নির্মাণ করা হয়।

ব্রীজটি নির্মাণ শেষে সে সময় যোগাযোগ মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু নিজে ঘোড়াঘাটে এসে ব্রীজটি উদ্বোধন করেন। দিনাজপুর জেলার সঙ্গে রংপুর ও গাইবান্ধা জেলায় যাতায়াতের মাধ্যম এই বেইলি ব্রীজটি। বেইলি ব্রীজটির বয়স অনেক হওয়ায় একটি গাড়ী ব্রীজে উঠলেই ঝন ঝন শব্দ হয়, মনে হয় এই বুঝি ভেঙ্গে পড়বে। ব্রীজের পাটাতনের অনেক নাটবল্টু ঢিল হয়ে খসে পড়েছে, এর ফলে লোহার পাতগুলোর মধ্যে ফাঁক সৃষ্টি হয়েছে। এই ফাঁক গুলোর কারণে রিক্সা, ভ্যান ও বাইসাইকেলের চাকা ঢুকে যেকোন সময় ঘটে যেতে পারে ভয়াবহ দূর্ঘটনা।

মাঝে মাঝে জোড়া তালি দিয়ে বেইলি ব্রীজটি সংস্কার করে চলার উপযোগী করলেও কিছু দিন পরে পূর্বের অবস্থায় দেখা যায়। অপরদিকে ব্রীজটি অতি সরু হওয়ায় এক সঙ্গে দুটি গাড়ি ক্রস করতে পারে না। ব্রীজটি একমুখী হওয়ায় ট্রাক, বাসসহ বড় যানবাহন পারাপারের সময় উভয় প্রান্তে সৃষ্টি হয় যানজটের। এতে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে চালকসহ এ পথের যাত্রীরা।

এই বিষয় নিয়ে এলাকাবাসীদের সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, প্রায় দুই যুগ আগে সড়ক ও জনপদ বিভাগ তৈরী করে এই সেতু। ঘোড়াঘাট উপজেলা ও আশেপাশের উপজেলা সহ রংপুর, গাইবান্ধা জেলার যোগাযোগ মাধ্যম এই ব্রীজ। সময়ের সাথে সাথে অনেক পরিবর্তন হলেও বেইলি ব্রীজটির অবস্থা দিনের পর দিন করুণ হয়ে পড়ছে, যেন দেখার কেউ নেই।

ঘোড়াঘাট উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ নূরনবী খাঁনের সঙ্গে কথা বলে তিনি জানান, এই ব্রীজটি সড়ক ও জনপদ বিভাগের আওতায়, আমাদের আওতায় নেই। দিনাজপুর সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সুনীতি চাকমার সাথে এই বিষয় নিয়ে মুঠোফোনে অনেকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

দিনাজপুর-৬ আসনের সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক এমপি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে ব্রীজটি অপসারণ করে অতিদ্রুত সেখানে আর সিসি ব্রীজ নির্মাণ করে প্রাণহানির আশংঙ্কা থেকে রক্ষা করতে জোর দাবী জানায় এলাকা বাসি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য