ঠাকুরগাঁও বালিয়াডাঙ্গীতে গৃহবধূর গলায় ফাঁস দেওয়া মরদেহ উদ্ধার, আটক ২

রংপুর

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে পারভীন আক্তার (৫০) নামে এক গৃহবধূর হত্যার অভিযোগে সৎ ছেলে সোহেল রানা (৩৫) ও স্বামী ইসরাইল হোসেন (৫৫) কে আটক করা হয়েছে। বুধবার উপজেলার বড়পলাশবাড়ী ইউপির বাদামবাড়ী দাড়িয়াবস্তী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সোহেল রানা বাদামবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরন করে।

জানা যায়, ওই গ্রামের ইসরাইল হকের ২য় স্ত্রী পারভীন আক্তার গত মঙ্গলবার রাত থেকে নিখোঁজ ছিলেন। এ অবস্থায় বুধবার বাড়ির পাশের একটি আম বাগানে পারভীনের মরদেহ দেখতে পায় এলাকাবাসী। পরে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ গিয়ে তথ্য ও আলামত সংগ্রহ করে লাশ মর্গে প্রেরন করে। নিহত পারভীন আক্তার পাশ্ববর্তী দুওসুও ইউনিয়নের মহিষমারী গ্রামের কাসেম হাজীর মেয়ে।

নিহতের মা ফেন্সি বেগম বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমার মেয়ের খাওয়া-দাওয়া বন্ধসহ নানা ভাবে অত্যাচার করে আসছিল তার সৎ ছেলে সোহেল রানা। তাকে হত্যার পর এভাবে বাগানে ফেলে রেখেছে তারা। আমি আমার মেয়ে হত্যার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।

স্থানীয় চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম জানান, ঘটনাটি পুলিশ তদন্ত করছে। ইতিমধ্যে সোহেল রানা ও তার বাবা ইসরাইল হক (৬৪) কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়েছে পুলিশ।

বালিয়াডাঙ্গী থানার ওসি হাবিবুল হক প্রধান বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। বিয়ষটি বেশ স্পর্শকাতর তাই আমরা খুব ভালোভাবে এটি তদন্ত করছি। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সোহেল রানা ও তার বাবা ইসরাইল হককে আটক করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে রানীশংকৈল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মো: তোফাজ্জল হোসেন জানান, বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে কিছু বলা যাচ্ছে না, তবে ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসার পর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।