বিধিনিষেধের বালাই নেই, বাড়ছে যানজট মানুষের ভিড়

বিধিনিষেধের বালাই নেই, বাড়ছে যানজট মানুষের ভিড়

জাতীয়

করোনা ভাইরাস সংক্রমণরোধে চলমান সর্বাত্মক লকডাউনে প্রথম কয়েকদিন রাজধানীর সড়কে গাড়ির সংখ্যা কম থাকলেও গেলো এক সপ্তাহ ধরে সড়কের গাড়ির সংখ্যা দিগুণের চেয়ে বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। গণপরিবহন চলতে নিষেধ থাকলেও ব্যাক্তিগত গাড়ি, সিএনজি, মটরসাইকেল আর পণ্যবাহী গাড়িতে রাজধানীর সড়কে যানবাহনের ভিড় বেড়েছে।

রাজধানীর ব্যস্ততম ট্রাফিক পয়েন্টেগুলোতে সিগন্যাল পড়ছে কয়েক মিনিট পর পর। বিধিনিষেধের বালাই নেই, মোড়ে মোড়ে আগের মতো চেক পোস্টও নেই। একইসঙ্গে যাত্রী, পথচারীদের ভিড়ও বেড়েছে চোখে পড়ার মতো। এদিকে দোকানপাট ও শপিংমলসহ কিছু সেক্টর খুলে দেওয়ায় সড়কে ভিড় হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

গণমাধ্যমকর্মী নিম্মী সিরাজী তার অফিসের গাড়িতে করে যাচ্ছিলেন সকাল সাড়ে ১১টার দিকে রাজধনীর বিজয় সরণীর মোড়ে এসে ট্রাফিক সিগন্যালে আটকে পড়ে। তিনি বলেন, এমন কঠোর লকডাউনে যেভাবে সড়কে দেখা যাচ্ছে কোন লকডাউন তো মনে হচ্ছে না। লকডাউনে যে রাস্তা ৫ মিনিটে থাকতে হয়েছে এখন ৪০ মিনিট থেকে ১ ঘন্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে।

রাজধানীর, মহাখালী, সাতরাস্তা, বিজয়স্মরণি, ধানমন্ডি, কাওরানবাজার ও শাহবাগ সরেজমিনে ঘুরে সড়কের একই চিত্র দেখা যায়। যানজট কমাতে মোড়ে মোড়ে ট্রাফিক সিগন্যাল ফেলাতেও দেখা গেছে ট্রাফিক পুলিশদের।

জরুরি সেবায় নিয়োজিত একটি বেসরকারি অফিসের কর্মীদেরকে প্রতিদিনই অফিসে পৌঁছে দেন সিএনজি চালক মহিবুল হাসান। সড়কে যানজট প্রসঙ্গে বলেন, প্রথম কয়েকদিন মনে হয়েছে লকডাউনের মতো এখন আর লকডাউন মনে হচ্ছে না। রাস্তায় যানজট আগের মতোই মনে হচ্ছে। লকডাইনের প্রথম প্রথম গাড়ি নিয়ে বের হলে পুলিশের বাধায় পড়তে হয়েছে। এখন আর তেমন আটকাচ্ছে না।

রাজধানীর বিজয় সরণিতে দায়িত্বরত ট্রাফিক কর্মকর্তা বলেন, লকডাউন চলমান থাকলেও নতুন করে দোকানপাট ও শপিংমল খুলে দেওয়ায় সড়কে যানবাহনের চাপ অনেকটা বেড়েছে। কিছুক্ষণ পর পরই সিগন্যাল দিতে হচ্ছে। অতিরিক্ত ব্যাক্তিগত গাড়ি সড়কে চলাচল করছে তাই ভিড়ও বাড়ছে।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের তেজগাঁও ট্রাফিক বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মো. সাহেদ আল মাসুদ দৈনিক ইত্তেফাক অনলাইনকে বলেন, লকডাউন চলমান থাকলেও কিছু অফিস ও শপিংমল খুলে দেওয়ায় সড়কে গাড়ির ভিড় আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। এছাড় গেল কয়দিন লকডাউনে সড়কে যে বিধিনিষেধ ছিল সেটি এখনো সেভাবে কার্যকর হচ্ছে না।

কেনো বিধিনিষেধ সেভাবে কার্যকর হচ্ছে না এমন প্রশ্নের জবাবে পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, যেহেতু কিছু কিছু অফিস, সেক্টর খুলে দেওয়া হয়েছে তাই সেভাবে আগের মতো চেক করা হচ্ছে না। যেহেতু অফিসগামী মানুষের যাতায়ত বেড়েছে তাই যানবাহন বেড়েছে সড়কে, একইভাবে যানজটও বেড়েছে। তবে প্রয়োজনে চেক করা হচ্ছে। তবে আগের মতো তেমন বিধিনিষেধ সড়কে কার্যকর হচ্ছে না। সেভাবে গাড়ি আটকিয়ে চেক করা হচ্ছে না। তবে সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে, অনিয়মরোধে আমরা সতর্ক রয়েছি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য