ভারতে ষষ্ঠ দিনের মতো ৩ লাখের বেশি রোগী শনাক্ত

ভারতে ষষ্ঠ দিনের মতো ৩ লাখের বেশি রোগী শনাক্ত

আন্তর্জাতিক

ভারতে টানা ষষ্ঠ দিনের মতো তিন লাখের বেশি করোনাভাইরাস রোগী শনাক্ত হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, আগের ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে তিন লাখ ২৩ হাজার ১৪৪ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে।

এ সংখ্যা সোমবার শনাক্ত হওয়া তিন লাখ ৫২ হাজার ৯৯১ জনের চেয়ে অনেকটা কম হলেও এতে সংক্রমণ হ্রাস পাচ্ছে, এমন সিদ্ধান্ত টানা বিভ্রান্তিকর হবে বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির একজন বিশেষজ্ঞ।

টানা পাঁচ দিন ধরে দৈনিক রোগী শনাক্তের বিশ্বরেকর্ড করা ভারতের হাসপাতালগুলো শয্যা সংকট ও তীব্র অক্সিজেন ঘাটতিতে ভুগছে। উপচে পড়া ভিড় সামলাতে বহু রোগীকে ফিরিয়ে দিচ্ছে তারা। এ পরিস্থিতিতে দেশটির সশস্ত্র বাহিনী হু হু করে বাড়তে থাকা সংক্রমণ মোকাবেলায় জরুরি চিকিৎসা সহায়তা নিয়ে মাঠে নামার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

মঙ্গলবার সকালের আগের ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে আরও দুই হাজার ৭৭১ জনের মৃত্যু হয়েছে, কিন্তু এ সংখ্যাটি আরও অনেক বেশি হবে বলে দেশটির স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের বিশ্বাস; বলছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

“অনুগ্রহ করে মনে রাখবেন দৈনিক শনাক্তের বিশাল পতন মূলত ব্যাপক পরীক্ষা হ্রাসের কারণেই ঘটেছে। একে আক্রান্ত কমার লক্ষণ বলে ধরে নেওয়া উচিত হবে না, বরং এটি বহু পজিটিভ ঘটনা হারিয়ে যাওয়ার ঘটনা!” এক টুইটার পোস্টে বলেছেন কেরালার ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব ম্যানেজমেন্টের অধ্যাপক ও স্বাস্থ্য অর্থনীতিবিদ রিজো এম জন।

বাংলাদেশ, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর ও যুক্তরাজ্যসহ বেশ কয়েকটি দেশ ভারত থেকে ভ্রমণার্থীদের প্রবেশে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। ভারতে ছড়িয়ে পড়া অতি সংক্রামক করোনাভাইরাসের ধরন রোধ করতে এ পদক্ষেপ নিয়েছে দেশগুলো। অস্ট্রেলিয়া ভারতের সঙ্গে ফ্লাইট চলাচল স্থগিত রাখার প্রস্তাব বিবেচনা করে দেখছে।

বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জনবহুল দেশটির পরিস্থিতি ‘হৃদয়বিদারকের চেয়েও বেশি কিছু’ বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান তেদ্রোস আধানম গেব্রিয়াসুস।

এ বিপর্যয় সামাল দেওয়ার জন্য ভারত তাদের সশস্ত্র বাহিনীগুলোকে তলব করেছে। দেশটির সামরিক বাহিনীর প্রধান বিপিন রাওয়াত সোমবার রাতে বলেছেন, চলমান পরিস্থিতি সামাল দিতে সশস্ত্র বাহিনী তাদের রিজার্ভ থেকে হাসপাতালে অক্সিজেন পাঠাবে এবং অবসরপ্রাপ্ত সামরিক চিকিৎসা কর্মকর্তারা দেশজুড়ে হাসপাতালগুলোতে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেবেন।

যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানিসহ বেশ কয়েকটি দেশ জরুরি চিকিৎসা সহায়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। ইতোমধ্যেই মঙ্গলবার ভোরে যুক্তরাজ্যের কোভিড চিকিৎসা সহায়তা বিমানযোগে ভারতে পৌঁছেছে বলে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের ভারতীয়-মার্কিন সদস্যরা ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি খাতও জরুরি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে, তারা অ্যাস্ট্রাজেনেকার ছয় কোটি কোভিড-১৯ টিকা অন্যান্য দেশগুলোর সঙ্গে শেয়ার করবে। এক্ষেত্রে ভারত প্রাধান্য পাবে বলে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছে বলে দেশটির একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য