Hili Hortalশাহ্ আলম শাহী,দিনাজপুর থেকেঃ বিজিবি’র হয়রানী বন্ধসহ ৩ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরে আজ সোমবার ৬ষ্ট দিনের মতো ধর্মঘট অব্যাহত রেখেছে ব্যবসায়ীরা সহ বন্দর সংশ্লিষ্ট ৫টি সংগঠন। এছাড়াও আজ সকাল-সন্ধা হরতালের ডাক দিয়েছে আন্দোলনকারীরা। এতে বন্দরে শুধু আমদানি-রপ্তানি আর পণ্য ওঠা-নামা বন্ধ নয়, আজ বন্ধ রয়েছে,যান-বাহন চলাচল এবং অফিস-প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম। এক প্রকার অচল এখন হিলি স্থলবন্দর।

সকাল ৬টায় শুরু হওয়া হরতালে হিলি স্থলবন্দর তথা হাকিমপুর উপজেলায় সকল প্রকার যানবাহন চলাচল, দোকানপাট, স্কুল কলেজ, ব্যাংক, বীমা অধিকাংশই বন্ধ রয়েছে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ আন্দোলন  অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে ব্যবসায়ী এবং ধর্মঘটী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সকাল থেকে হিলি চার রাস্তা মোড়ে টায়ার জ্বালিয়ে সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়ে অবস্থান ধর্মঘট পালন করছে আন্দোলনকারীরা। এ সময় হিলি সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি আবুল কাসেম আজাদ,কাঁচামাল আমদানীকারক গ্রুপের আহবায়ক হারুনুর রশীদ, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার লিয়াকত আলী, ব্যবসায়ী জামিল হোসেন চলন্ত, মুশফিকুর রহমান, হানিফ লস্করসহ সর্বদলীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রেখেছেন।

বক্তারা বলেন- বিজিবি’র হয়রানীর শিকার হয়ে ব্যবসায়ীরা ব্যবসা গুটিয়ে নিয়েছে হিলি স্থলবন্দর থেকে।  বক্তব্যে আরও বলেন পরবর্তিতে আরও কঠোর কর্মসুচী নেবেন তারা।

এ আন্দোলনের ফলে হিলি পানামা পোর্টে পণ্য খালাসের অপেক্ষায় আটকে গেছে শতাধিক ভারতীয় পণ্য বোঝাই ট্রাক। দেশে প্রবেশের অপেক্ষায় ওপার সীমান্তেও আটকা পড়েছে প্রায় দেড় হাজার পন্য বোঝাই ট্রাক । ভারত হিলি এক্সপোটার এন্ড ক্লিয়ারিং এজেন্টস এসোসিয়েশনের সা: সম্পাদক অশোক মন্ডল সীমান্তের জিরো পয়েন্টে জানিয়েছেন, কাঁচাপন্যগুলো ইতিমধ্যে গরমে নষ্ট হতে শুরু করেছে।

এদিকে হিলি স্থলবন্দরের আন্দোলনকারী ব্যবসায়ীদের সাথে একাত্বতা ঘোষণা করেছেন  জয়পুরহাট ও দিনাজপুর জেলার আমদানি-রপ্তানি কারক ব্যবসায়ীরা।

হিলি কাস্টমস রাজস্ব কর্মকর্তা  মনিরুজ্জামান চৌধুরী জানিয়েছেন, গেলো অর্থ বছরে ৫৪ কোটি টাকার স্থলে রাজস্ব আয় হয়েছিল  চার গুন ২ শ ৩৮ কোটি ৭৭ লক্ষ টাকা। চলতি অর্থ বছরের লক্ষ্যমাত্রা ১ শ ৮৬ কোটি  ১০ লক্ষ টাকা নির্ধারন করা হলেও গত ১০ মাসে রাজস্ব আয় হয়েছে মাত্র ১শ ৫১ কোটি ৭৮ লক্ষ টাকা। ব্যবসায়ীদের হরতাল অব্যহত থাকলে চলতি অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রা পুরনে ব্যর্থ হবেন এমনি আশংখা প্রকাশ করেছেন ওই রাজস্ব কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য, সীমান্তের জিরো লাইনে আমাদানী কৃত পণ্যের ম্যানুফিষ্টে বিজিবি কর্তৃক সিল মারা, ব্যাবসায়ীদের সাথে অসৌজন্য মুলক আচরণ ও হয়রানীর প্রতিবাদে বুধবার থেকে ধর্মঘট  কর্মসূচী পালন করেছে ব্যবসায়ীরা। এতে একাত্বতা ঘোষণা করে ধর্মঘটে যোগ দিয়েছে সম্মিলিত ট্রাক বন্দোবস্তকারী ও ট্রাক মলিক সমিতিসহ বন্দর সংশ্লিষ্ট ৫টি সংগঠন। আজ হরতাল পালন করছে তারা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য