বীরগঞ্জের বালু মহালে ১০ চাকার ড্রাম ট্রাক চলাচল বন্ধে গণস্বাক্ষর

বীরগঞ্জের বালু মহালে ১০ চাকার ড্রাম ট্রাক চলাচল বন্ধে গণস্বাক্ষর

দিনাজপুর

দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে বালুর মহল থেকে বালু উত্তোলন করে প্রতিনিয়ত বালু ভর্তি ১০ চাকার ড্রাম ট্রাক চলাচলে জনসাধারণ চরম দুর্ভোগে। উপজেলার শতগ্রাম ইউনিয়নের বোলদিয়া পাড়া মৌজার ৩৬৫ দাগের ১০ একর ও গড়ফতু মৌজার ৩০ দাগের ১৫ একর জমিতে বোলদিয়া পাড়া বালুমহাল অবস্থিত।

৮ মার্চ ২০২১ ইং দিনাজপুর জেলা প্রশাসক ও জেলা বালু মহাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি খালেদ মোহাম্মদ জাকী সাক্ষরিত ৪৬ টি শর্তাবলী সম্বলিত এক ইজারা বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক সরকার নির্ধারিত কাঙ্খিত ৭ লাখ ৮ হাজার ৮শত ২৬ টাকার স্থলে ৮১ লাখ ভ্যাট সহ প্রায় কোটি টাকার দরপত্র দাখিলে বোলদিয়া বালু মহালের নতুন ইজারা গ্রহন করেন নয়ন কনস্ট্রাকশান।

সে মোতাবেক বর্ণিত ইজারা ১ লা বৈশাখ ১৪২৮ বাংলা সন হতে ১ বছরের জন্য কার্যকর হলে ১৪ এপ্রিল ২০২১ ইং হতে এই বালু মহাল থেকে বালু উত্তোলন শুরু হয়। ঝাড়বাড়ী শান্তির মোড় থেকে বটতলা হয়ে আত্রাই নদী পর্যন্ত গ্রামের ছোট রাস্তায় বালু বোঝাই ভারি ১০ চাকার ড্রাম ট্রাক চলাচলের কারণে দূর্ঘটনা দিন-দিন বেড়েই চলছে সেই সাথে গ্রামীন পাকা-কাঁচা সড়ক ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

উল্লেখ্য যে, কয়েক বছর ধরে এই বালু মহাল দিয়ে বালু পরিবহন করার ফলে ঝাড়বাড়ী হতে বলদিয়াপাড়া, গড়ফুতু গ্রামের বাসিন্দাদের একমাত্র পাকা রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। বিগত দিনে গ্রামবাসী ১০ চাকার ড্রাম ট্রাক বন্ধের জন্য আন্দোলন, মানববন্ধন সহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেছে।

যার ফলস্রুতিতে জেলা প্রশাসক এবারের বালু মহাল ইজারা বিজ্ঞপ্তি শর্তাবলীতে ৩৯ নং শর্তে উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে রাস্তাগুলোর সহনীয় ক্ষমতা কম থাকায় বালু পরিবহনে ১০ চাকার বালুর ট্রাক ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করেন এবং ১৩ নং শর্তে রাত্রীকালে বালু বা মাটি খনন করা যাবেনা উল্লেখ করেন। এলাকাবাসী বালু মহাল ইজারদারকে মৌখিকভাবে নীতিমালা মেনে বালু উত্তোলনের কথা বললেও কোন খুঁটির বলে তিনি নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে রাত-দিন ২৪ ঘণ্টায় ১০ চাকার ড্রাম ট্রাক দিয়ে দেদারসে বালু পরিবহন করছেন।

নীতিমালা অনুযায়ী গ্রামের রাস্তা ও পরিবেশ রক্ষার্থে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে এলাকাবাসী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বরাবর স্বাক্ষলিপি প্রদান করেছে। এব্যাপারে সংবাদ সংগ্রহে সরেজমিনে পরিদর্শনে গেলে দেখা যায়, গ্রামীন রাস্তাগুলোর পার্শ্বে বিভিন্ন স্থানে বিক্রির উদ্দেশ্যে বালু ষ্টক করে রাখা হয়েছে এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের নদীর ড্রেজিংকৃত ( সরকারি ভাবে দরপত্রের মাধ্যমে বিক্রি যোগ্য) বালুর স্তুপ বিক্রি করা হচ্ছে এবং এলাকাবাসীদের অনেকেই জানান , দরপত্রে উল্লিখিত বোলদিয়া বালু মহালের ২ মৌজা ব্যতীত পার্শ্ববর্তী ধুলউড়ি মৌজা থেকেও উত্তোলিত হচ্ছে বালু যা পুরপুরি আইন বহিভূত কাজ।

তারা আরো জানায়, ঝাড়বাড়ী-জয়গঞ্জ আত্রাই খেয়াঘাট পয়েন্ট থেকে বালু বোঝাই ভারি ড্রাম ট্রাক চলাচল বন্ধ সহ সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে সংশ্লিষ্ট ইজারাদার রাতের-আঁধারে অপরিকল্পিত অবৈধ ভাবে বালুর গাড়ি চলাচল বন্ধ করার দাবি ও পরিবেশ রক্ষার্থে সচেতন এলাকাবাসী গনসাক্ষর দিয়েছেন।

বালুঘাটের অসংখ্য অবৈধ ট্রলি সহ ১০ চাকার ড্রাম ট্রাক প্রতিদিন ও রাত প্রায় ২৪ ঘন্টাই বিরামহীনভাবে চলাচল করে আসছে। এতে উক্ত রাস্তা দিয়ে এলাকাবাসীর ছোট ছেলে-মেয়ে সহ সকল বয়সের সাধারণ মানুষের চলাচলে বিঘ্ন ও নানাবিধ সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে এবং পথচারিরা সবসময় নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছেন।

এই এলাকার মধ্য দিয়ে এই রাস্তায় বালুঘাটের ট্রলি ও ১০ চাকার ড্রাম ট্রাক চলাচলের চাপে এলাকাবাসীর বহুল কাঙ্খিত পাঁকা রাস্তার বেহাল দশা হয়ে দ্রুত নষ্ট হয়ে পরেছে এবং বর্তমানে রাস্তাটির উপর ৮ ইঞ্চি হতে ১০ ইঞ্চি পর্যন্ত বালুর স্তুপ জমে মানুষজন রিক্সা,ভ্যান,সাইকেল,মোটরসাইকেল চলাচলে প্রায়শই স্লিপ করে দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।এমতাবস্থায় জন- মানুষের সুরক্ষার স্বার্থে উক্ত বালুঘাটে ১০ চাকার ড্রাম ট্রাক চলাচল বন্ধ করতে ও রাত্রিকালীন বালু উত্তোলন বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করার আশু প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর এলাকাবাসীদের গনসাক্ষরকৃত আবেদন দাখিল করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য