নিউ জিল্যান্ডের সঙ্গে ভ্রমণ উন্মুক্ত করলো অস্ট্রেলিয়া

আন্তর্জাতিক

দীর্ঘ এক বছর পর অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার বিমানে যাত্রী পরিবহন স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরেছে। আজ সোমবার (১৯ এপ্রিল) থেকে কোনো ধরনের কোভিড-১৯ বিধিনিষেধ ছাড়াই যাতায়াত করতে পারছেন দেশ দুটির নাগরিকরা। এটিকে ‘ট্রাভেল বাবল’ বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। এ খবর প্রকাশ করেছে বিবিসি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্রাভেল বাবলের কারনে এখন থেকে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া রুটে যাতায়াতকারীদের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে না। এমনকি করোনা টেস্ট করানোরও বাধ্যবাধকতা আর থাকছে না। তবে ফ্লাইট যাত্রার আগে অবশ্যই নিজ বাড়িতে ১৪দিন কোয়ারেন্টাইন করতে হবে।

বিবিসি জানিয়েছে, সোমবার দেশ দুটির হাজারের অধিক যাত্রী ফ্লাইট বুকিং দিয়েছে। বিমানবন্দরে অপেক্ষমান যাত্রীদের মাঝে বেশ উচ্ছ্বাস চোখে পরেছে। তারা এক বছরেরও বেশি সময় পর প্রিয়জনদের সাথে সাক্ষাতের জন্য মুখিয়ে আছেন।

সিডনি বিমানবন্দরে অপেক্ষমান এক যাত্রী বলেন, আমি কতটা খুশি ও আবেগী তা বলে বোঝাতে পারবো না। এমন আরো অনেকেই তাদের প্রিয়জনদের সাথে দেখা করার অপেক্ষায় রয়েছেন।

জন পালাগি নামের আরেক যাত্রী বলেন, গত সপ্তাহের বৃহস্পতিবার আমার বড় ভাই মারা গেছেন। কিন্তু আমরা সেখানে যেতে পারিনি। তবে আজ থেকে কোনো ধরনের কোয়ারেন্টাইন ও বিধিনিষেধ ছাড়া বাড়ি যেতে পারা খুবই ভালো উদ্যোগ। আরেকজন বলছেন, দীর্ঘ দুই বছর তার সঙ্গীকে দেখতে যাচ্ছেন তিনি।

মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে গত বছরের মার্চে ফ্লাইট নিষেধাজ্ঞা জারি করে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড সরকার। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর পরবর্তীতে খুলে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনসহ বিভিন্ন বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। এবার সেগুলোও তুলে নেওয়া হলো।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য