গাইবান্ধায় ব্যবসায়িকে হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ, জেলা আ’লীগ ও পুলিশ সুপারের প্রেস বিফ্রিং

রংপুর বিভাগ

গাইবান্ধা জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর স¤পাদক দাদন ব্যবসায়ি মাসুদ রানা তার বাড়িতে সুদের টাকার কিস্তি দিতে না পারায় জুতা ব্যবসায়ি হাসান আলীকে টানা এক মাস আটকে রেখে হত্যার প্রতিবাদে গাইবান্ধায় বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

রোববার সকাল ১১টায় জেলা শহরের ডিবি রোডে আসাদুজ্জামান মার্কেটের সামনে ‘গাইবান্ধাবাসি’ নামে একটি নাগরিক সংগঠনের ব্যানারে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে নিহত হাসান আলীর স্ত্রী বিথি বেগম, ছোট ছেলে হেদায়েতুল ইসলাম শাফিনসহ জেলার রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক ও বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নেন।

এই হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু তদন্ত, দাদন ব্যবসায়ি আ’লীগ নেতা মাসুদ রানার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং সদর থানার ওসি মাহফুজুর রহমানের অপসারণসহ ঘটনার সাথে জড়িত পুলিশ কর্মকর্তাদের শাস্তি দাবি করে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরোর সদস্য আমিনুল ইসলাম গোলাপ, পরিবেশ আন্দোলন জেলা সভাপতি ওয়াজিউর রহমান রাফেল, দোকান মালিক সমিতির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মকছুদার রহমান শাহান, জেলা জাসদ সভাপতি গোলাম মারুফ মনা, জেলা বারের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. সিরাজুল ইসলাম বাবু, সিপিবি জেলা সভাপতি মিহির ঘোষ, বাংলাদেশের সাম্যবাদী আন্দোলনের জেলা সদস্য সচিব মনজুর আলম মিঠু, উদীচী জেলা সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল গণি রিজন, বাংলাদেশ নারী মুক্তি কেন্দ্রের জেলা সাধারণ সম্পাদক নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, জেলা ব্যবসায়ি সমন্বয় সমিতির সভাপতি ইকবাল আহমেদ, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম রুবেল, জেলা বাকসিস সভাপতি নিয়ামুল হাসান, বাসদ মাকর্সবাদী জেলা সদস্য কাজী আবু রাহে শফিউল্যাহ, ওয়ার্কার্স পার্টি জেলা সাধারণ সম্পাদক মিলন কান্তি সরকার প্রমুখ। এদিকে ব্যবসায়ি হাসান আলী নিহতের ঘটনার প্রতিবাদে গাইবান্ধা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজ সংগঠন কার্যালয়ে বিকাল ৩টায় জেলার সকল ব্যবসায়িদের এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, গাইবান্ধা জেলা শহরের খানকা শরীফ সংলগ্ন নারায়নপুর এলাকার জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর স¤পাদক কুখ্যাত দাদন ব্যবসায়ী মাসুদ রানার বাড়ী থেকে শনিবার সকালে হাসান আলী (৪৫) নামে এক ব্যবসায়ীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পাদুকা ব্যবসায়ী এবং আফজাল সুজ গাইবান্ধা শাখার সাবেক মালিক নিহত হাসান আলী শহরের থানাপাড়া এলাকার মৃত হজরত আলীর ছেলে।

এদিকে, গাইবান্ধায় জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর স¤পাদকের বাড়ি থেকে শহরের থানাপাড়ার আফজাল সুজের সাবেক মালিক হাসান আলীকে টানা এক মাস আটকে রেখে হত্যা করার ঘটনায় রোববার মাসুদ রানাকে কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশে তার ওই পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। জেলা আ’লীগ কার্যালয়ে এক প্রেস বিফ্রিংয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান।

এদিকে এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে গাইবান্ধা জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে জরুরী ভিত্তিতে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। রোববার সকালে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক প্রেস বিফ্রিংয়ে পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম এ তথ্য জানান। এই তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন আহবায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) রাহাত গাওহারী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হেড কোয়ার্টার আবুল খায়ের ও পুলিশ পরিদর্শক মো. আব্দুল লতিফ। আগামী ৭ কার্যদিবসে ঘটনাটি সরেজমিনে তদন্ত করে এই তদন্ত কমিটি তদন্ত রিপোর্ট প্রদান করবেন।

উল্লেখ্য, এই হত্যাকান্ডের ঘটনায় জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত প্রেস বিফ্রিংয়ে জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর স¤পাদক মাসুদ রানাকে কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশ মোতাবেক উপ-দপ্তর সম্পাদক পদ থেকে অব্যাহতি প্রদানের ঘোষণা দেয়া হয়। প্রেস বিফ্রিংয়ে উল্লেখ করা হয়, শনিবার ১০ এপ্রিল বিভিন্ন গণ্যমাধ্যমে প্রকাশিত জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক মো. মাসুদ রানার বাসায় অনাকাঙ্খিত ঘটনার প্রেক্ষিতে উল্লেখিত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। প্রেস বিফ্রিংয়ে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পিয়ারুল ইসলাম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুর জামান রিংকু, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোশাররফ হোসেন দুলাল, ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক মো. আব্দুল লতিফ আকন্দ প্রমুখ।

পুলিশ সুপার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত প্রেস বিফ্রিংয়ে পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম তাঁর সংক্ষিপ্ত বিফ্রিংয়ে জানান, এই ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। এব্যাপারে আটক মাসুদ রানাকে জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রয়েছে। এছাড়াও এই ঘটনায় মামলা গ্রহণের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট প্রাপ্তি ও তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবসায়ি হাসান আলীর মৃত্যুর এই ঘটনা সম্পর্কে প্রয়োজনীয় সকল বিষয়ে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ ও আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। তিনি আরও বলেন, এই ঘটনায় পুলিশ সদস্যসহ অন্য যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের কাউকেই নুন্যতম ছাড় দেয়া হবে না বরং দ্রুত তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

প্রেস বিফ্রিংয়ে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হেড কোয়ার্টার আবুল খায়ের, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বি সার্কেল) আবু লাইচ মো. ইলিয়াছ জিকু, পুলিশ পরিদর্শক (ডিআইওয়ান) মো. আব্দুল লতিফ প্রমুখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য