Nirjaton2এম, আর , মুন্না আজীজ চৌধূরী – আমবাড়ী ( দিনাজপুর) থেকেঃ- দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর থানাধীন ৭নং মোস্তফাপুর ইউনিয়নের বড়দল গ্রামে ৯ বছরের শিশুকন্যা সুমাইয়া খাতুনকে ধর্ষনের অভিযোগ পাওয়া যায়। স্থানীয় সুত্রে জানা যায়- বড়দল গ্রাম নিবাসী মোঃ মনছের আলী (৬৫) এর ৩য় কন্যা মোছাঃ সুমাইয়া খাতুন(৯) হবিবপুর আদিবাসী পাড়ায় ব্র্যাক স্কুলের ২য় শ্রেণির ছাত্রী। তার স্কুল যাতায়াতের রাস্তা সংলগ্ন মোঃ আব্দুল হাকিম মন্ডল (৩০) পিতাঃ মোঃ মছিরত শাহ, সাং- হবিবপুর, পার্বতীপুর, দিনাজপুর এর বাড়ী।

সুমাইয়া ঐ রাস্তা দিয়ে প্রতিনিয়ত স্কুলে যাতায়াত করতো। বেশ কিছুদিন ধরে হাকিম সুমাইকে নানারকম বিরক্তিকর আচার ব্যাবহার ও কথাবার্তা বলে উত্তক্ত করত। তার পরিবার উক্ত বিষয় জানতে পারলে এলাকার লোকজন সহ পরবর্তীতে সুমাইকে এরুপ আচরন না করার জন্য আব্দুল হাকিমকে নিষেধ করে। তারপরও সবার নিষেধকে অমান্য করে গত ১২/০৪/১৪ ইং রোজ শনিবার আনুমানিক বেলা ১.১০ মিনিট স্কুল ছুটি হলে সুমাইয়া বাড়ীতে ফেরার পথে আব্দুল হাকিমের বাড়ীর সামনে সুমাইকে একা পেয়ে কোল পাজা করে হাকিম তার বাড়ীতে জোর পূর্বক ঢুকে নিয়ে ঘরে প্রবেশ করে দরজা লাগিয়ে বিবস্ত্র করে  ধর্ষনের চেষ্টা চালায়।

এমতাবস্তায় সুমাইয়া চিৎকার করলে, আঃ হাকিমের ছেলে রিফাত(৭) চিৎকার শুনে দৌড়ে এসে বাড়ীর লাগানো দরজায় ধাক্কা ধাক্কি করে এবং বিভিন্ন ধরনের গালি গালাজ করে। তার পর পরই আশে পাশের লোকজন ছুটে এসে সুমাইকে বিবস্ত্র অবস্থায় উদ্ধার করে।।

পরবর্তীতে উক্ত ঘটনাটির সুবিচারের জন্য এলাকাবাসী ইউনিয়ন পরিষদে সু- বিচার প্রার্থনা করে। পরিষদের চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান (মতিন) উক্ত ঘটনার আসামী আব্দুল হাকিমকে শালিষের জন্য বার বার তলব করার পরও সে স্থানীয় আদালতকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে অমান্য করে। চেয়ারম্যান উক্ত ঘটনাটি সত্য বলে জানতে পারেন।

আসামী শালিসে ধরা না দেওয়ায় চেয়ারম্যান ব্যর্থ হয়ে সুমাইয়ার পরিবারকে লিখিত ভাবে উচ্চ আদালতে যাওয়ার পরামর্শ প্রদান করেন। এর মাঝে ঘটনাটিকে ধামা চাপা দেওয়ার জন্য গত ১০/০৫/১৪ ইং তারিখে সুমাইয়ার বাবা মনছের আলীর নামে পার্বতীপুর থানায় আঃ হাকিম একটি মিথ্যা এজাহার দায়ের করে।

এলাকায় সুবিচার না পেয়ে নিরুপায় হয়ে গরীব, অসহায় সুমাইয়ার বাবা এলাকাবাসীর সহযোগীতায় পার্বতীপুর থানায় ১৩/০৫/১৪ ইং তারিখে   একটি এজাহার দায়ের করলে, আসামী আব্দুল হাকিম ও তার দালাল চক্র সুমাইয়ার পরিবারকে মামলা প্রত্যাহারের জন্য বিভিন্ন রকম ভয়ভীতি ও প্রান নাশের হুমকি দেয়। এনিয়ে সুমাইয়ার পরিবারে বর্তমানে আতংক বিরাজ করছে। প্রত্যক্ষদর্শী তথা এলাকাবাসী  আইনের নিকট উক্ত ঘটনার সু-বিচার ও এ ধরনের জঘন্যতম অপরাধী আঃ হাকিমের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি কামনা করছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য