দিনাজপুরে আন্তনগর দ্রুতযান চলন্ত ট্রেনে শিশুর জন্ম

দিনাজপুর

দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর জেলায় ঢাকাগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনে জন্মগ্রহণ করেছেন এক শিশু। ট্রেন কর্তৃপক্ষ শিশুটির নাম দিয়েছে মিতালী।

আজ রবিবার সকাল পৌনে ১১ টায় মঙ্গলপুর রেলস্টেশন অতিক্রমকালে এমন ঘটনা ঘটে। শিশুর মাতার নাম মুক্তি বেগম। মুক্তি বেগম ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ থানার ভমরাদহ ইউনিয়নের হাজী পাড়া এলাকার মনসুর আলীর স্ত্রী। বর্তমানে তিনি দিনাজপুর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের লেবার ও গাইনী ওয়ার্ডের অতিরিক্ত ১ নং বেডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

মুক্তির বেগমের স্বামী বলেন, আমার যখন থেকে ব্যাথা শুরু হয়েছে, ঠিক তখন থেকেই ট্রেনের যাত্রীরা আমরা খেয়াল রেখেছে। যাত্রীরা অনেক সাহায্যও করেছে। তাদের সহায়তায় আজ আমার মেয়ে বাচ্চাটি প্রসব হয়েছে। আমার প্রথম বাচ্চাটিও মেয়ে। আমি আবার মেয়ে সন্তান পাওয়াও অনেক খুশি।

তিনি বলেন, আমার আগে থেকেই ইচ্ছে আমি আরেকটি মেয়ে সন্তান নেবা। এই সন্তান যদি ছেলেও হতো, তবুও আমি আরেক মেয়ে সন্তান নিতাম। আমি আরও বেশি খুশি সকলেও সাহায্য পেয়ে। আমি হাসপাতালে ভর্তি হবার পর সকলেই দেখা-শুনা করছে। আমার মেয়ে সন্তানটির নাম ওরাই (ট্রেন কর্তৃপক্ষ) মিতালী রেখেছে। আর আমিও এই নামটাই রাখবো। আমি কামনা করি ট্রেনে আমাকে যারা সাহায্য করেছে তাদের সকলের ভালো হোক।

কথা হয় মুক্তি বেগমের স্বামী মনসুর আলীর সাথে। তিনি ঘটনার বিবরন দিয়ে বলেন, আমি আমার স্ত্রীকে ডাক্তার দেখানোর জন্য দিনাজপুরে উদ্দেশ্যে রওনা হই। পীরগঞ্জ রেলস্টেশনে ৯ টা ২৫ মিনিটে ঢাকাগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেসে উঠি। তার ২০ মিনিট পর যখন সেতাবগঞ্জ রেল স্টেশন পার হই তখন থেকেই আমার স্ত্রী ব্যাথা উঠে। এই ব্যাথায় সে (স্ত্রী) অনেক চিল্লাচিল্লি শুরু করে। তারপরে মঙ্গলপুর স্টেশন পার হবার পর বাচ্চাটি প্রসব হয়। তবে বাচ্চা প্রসব করার আগে ট্রেনে যেসব মহিলারা ছিলো তারা কাপড় দিয়ে ঘেরা দিয়েছিল।

তিনি বলেন, এই ঘটনায় ট্রেন কর্তৃপক্ষ আমাদের অনেক সাহায্য করেছে। যখন দিনাজপুর রেলস্টেশনে আমারা আসি তখন ট্রেনটি আমাদের জন্য অনেকক্ষন অপেক্ষা করে। কর্তৃপক্ষ নিজেই একটি এ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করে এই হাসপাতালে নিয়ে আসে। ট্রেন কর্তৃপক্ষ নতুন ঢাকা থেকে শিলিগুড়ি ট্রেন মিতালী এক্সপ্রেসের নাম অনুসারে নাম দিয়েছে মিতালী। আমি ও আমার স্ত্রীর ইচ্ছা বাচ্চাটির জন্য এই নামটি আমরা রাখবো।

নার্স (সেবিকা) জানিয়েছে বর্তমানে মা ও সন্তান দু’জনই সুস্থ আছে। একই ওয়ার্ডে কর্মরত নার্স রাবেয়া খাতুন। তিনি বলেন, আজ সকাল ১১ টা ৩০ মিনিটে মুক্তি বেগম নামে বাচ্চা প্রসব হওয়া একজন রোগী ভর্তি হয়েছেন। আমাদের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও বিষয়টি সম্পর্কে জানেন। ভর্তি হবার সময় রোগীটির কিছু সমস্যা ছিলো, তা এখন স্বাভাবিক হয়েগেছে। বর্তমানে মা ও সন্তান দু’জনই সুস্থ আছেন। আমরা আমাদের স্বাধ্যমত রোগীটি সার্বক্ষণিক দেখাশুনা করছি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য