রাণীশংকৈল সংবাদাতাঃ থামছেই না অচেতন করে, বাড়ী লুট এরই ধারাবাহিকতায় আবারো ঠাকুরগাঁও রাণীশংকৈল উপজেলায় সরকার দলীয় এক নেতার বাড়ীর সকল সদস্যেদের অচেতন করে অভিনব পন্থায় র্দূর্ধষ চুরির ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার দিবাগত রাতে লেহেম্বা ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ঠিকাদার ও ইটভাটা ব্যবসায়ী রওশন আলীর উপজেলার বিরাশি বাজার এলাকার বাড়ীতে ঘটেছে। এসময় নগদ পনেরো লাখ টাকা ও স্বর্ণলংকার নিয়ে গেছে চোরেরা। পরিবারের সদস্যরা বর্তমানে কিছুটা সুস্থ রয়েছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন থানা পরির্দশক এসএম জাহিদ ইকবাল ও উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন।

স্থানীয়রা ধারণা করছেন, বাড়ীর যে কোন খাদ্য দ্রব্যর সাথে নেশাজাতীয় কোন দ্রব্য মিশিয়ে পরিবার সকলকে অচেতন করেই এ কাজ করা হয়েছে বলে দাবী তাদের।

রওশন আলী সোমবার বিকেলে সাংবাদিকদের জানায়, গত দিবাগত রাতের কোন এক সময় অজ্ঞাত চোরের দল আমার বাড়ী থেকে নগদ পনেরো লাখ টাকা ও সকেসের ড্রয়ারের তালা ভেঙ্গে ১০ ভরি স্বর্ণলংকার চুরি করে নিয়ে গেছে।

তিনি আরো জানান, রাতে একবার আমি উঠেছিলাম সে-সময় আমার মোবাইলটি খুজে পাচ্ছিলাম না। এ সময় আমার মেয়ে ও স্ত্রী’কে ডাকাডাকি করলেও তারা উঠছিল না। ভাবলাম ঘুমে বিভোর তারা সকালে মোবাইল খুজবো। কিন্তু ভোরে আমার স্ত্রী উঠে দেখে ঘরের সকেসের ড্রয়ারের তালা ভাঙ্গা। পরে এসে দেখি আমার ঘরের আলমারির ড্রয়ার থেকেও টাকা নিয়েছে চোরের দল। আর মোবাইলটি বাড়ীর আঙিনার এক কিনারে দুপুরের দিকে সুইচ বন্ধ করা অবস্থায় পায় স্থানীয়রা। আ’লীগ নেতা আরো বলেন, আমার স্ত্রী দুই মেয়ে বর্তমানে কিছুটা সুস্থ, তবে ঘুমের ভাবটা এখনো যায় নি।

এ ব্যাপারে থানা পরিদর্শক এস এম জাহিদ ইকবাল বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম বিষয়টি গুরত্বসহকারে দেখা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত ইতিমধ্যেও রাণীশংকৈলে একাধিক এমন ঘটনা ঘটেছে। তবে এ ঘটনার সাথে কারা জড়িত আদৌ বের করতে পারেনি স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য